kalerkantho


তিন গৃহবধূর নিথর লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মাগুরার শ্রীপুরে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন হয়েছেন। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। অন্যদিকে পটুয়াখালীর বাউফল ও গাজীপুরের কালিয়াকৈরে দুই গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিস্তারিত প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে :

মাগুরা : শ্রীপুর উপজেলায় দাবি করা টাকা না পেয়ে গৃহবধূ সীমা বিশ্বাসকে মারধর করে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী সুব্রত বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শনিবার রাতে উপজেলার চাকদহ গ্রামে। খবর পেয়ে পরদিন রবিবার পুলিশ গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে সীমার ভাই অশোক বিশ্বাস থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযুক্ত স্বামী সুব্রত পলাতক রয়েছে। পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সীমার শ্বশুর অখিল বিশ্বাস ও শাশুড়ি সবিতা বিশ্বাসকে আটক করেছে।

পটুয়াখালী : বাউফল উপজেলার ঘুচরাকাঠি গ্রাম থেকে গতকাল রবিবার গৃহবধূ আমেনা বেগমের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গৃহবধূর বাবা মো. সিদ্দিক ফকির অভিযোগ করেন, তাঁর মেয়েকে প্রায়ই যৌতুকের জন্য মারধর করত স্বামী জুয়েল সরদার।

শনিবার রাতে জুয়েল ও তার পরিবারের লোকজন আমেনাকে নির্যাতন করে হত্যার পর লাশ ঘরে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) : গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার রতনপুরে গতকাল রবিবার সকালে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশের ধারণা, তাঁকে শ্বাস রোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার পর থেকে তাঁর স্বামী-সতিন পলাতক রয়েছে। নিহত নুরিজান বেগম (২৫) গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার বড়চাদর গ্রামের মৃত আব্দুস সামাদের মেয়ে। স্বামী শাহীন আলম (৩২) জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার বাশুরা গ্রামের জাহিদুল ইসলামের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শাহীন আলম তাঁর স্ত্রী জিয়াছমিন বেগম, ছেলে (৭), মেয়েকে (৫) নিয়ে কাজের সন্ধানে প্রায় তিন বছর আগে রতনপুরে আসে। স্বামী স্থানীয় কামাল পাশার বাড়িতে ভাড়া থেকে অটোরিকশা চালায়। স্ত্রী স্থানীয় করণী নিট কম্পোজিট কারখানায় চাকরি করে। সাত-আট মাস আগে স্বামী ওই কারখানার আরেক শ্রমিক নুরিজানকে দ্বিতীয় বিয়ে করে। দুই স্ত্রী একই বাসায় থাকত। কিছুদিন ধরে পরিবারে কলহ চলে আসছিল। এর জের ধরে স্বামী ও প্রথম স্ত্রী মিলে গত শনিবার রাতের কোনো এক সময় দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যা করে। পরে লাশ একই মালিকের আরেক বাড়ির একটি ঘরের বারান্দায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। গতকাল সকালে লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসী।


মন্তব্য