kalerkantho


‘লেখা চুরি’র দায়ে ঢাবি শিক্ষকের পদাবনতি

ছুটি ছাড়া বিদেশে থাকা দুই শিক্ষক চাকরিচ্যুত

নিজস্ব প্রতিবেদক ও ঢাবি প্রতিনিধি   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের লেখা রেফারেন্স ছাড়াই নিজের নামে প্রকাশ করায় নৈতিক স্খলনের দায়ে বিশ্বধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক আবু সায়েমের পদাবনতি হয়েছে। এ ছাড়া অননুমোদিত ছুটিতে উচ্চশিক্ষার্থে বিদেশে থাকায় লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউটের প্রভাষক হীরা লাল পালকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

আর বিদেশে অবস্থানরত দর্শন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. গোলাম আযমকে চাকরিচ্যুত করতে বিশ্ববিদ্যালয় স্ট্যান্ডিং কমিটিকে বলা হয়েছে।

উপাচার্য ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে গত মঙ্গলবার রাতে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সিন্ডিকেট সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্সি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আবু মূসা মো. আরিফ বিল্লাহর ‘আন্ডারস্ট্যান্ডিং অব আদারস রিলিজিয়ন’ প্রবন্ধের ৫০ শতাংশের বেশি কপি করে আরেকটি প্রবন্ধ লিখেন বিশ্বধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক আবু সায়েম। তবে কপি করা লেখা ও প্রবন্ধের নাম বা রেফারেন্স উল্লেখ করেননি তিনি। এ বিষয়ে ওই প্রবন্ধের লেখক অভিযোগ করলে তদন্তের পরিপ্রেক্ষিতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। সহযোগী অধ্যাপক আবু সায়েমকে পদাবনতি করে সহকারী অধ্যাপক করা হয়েছে। এ ছাড়া আগামী দুই বছর তাঁকে কোনো ধরনের প্রমোশন না দেওয়ারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সিন্ডিকেটের একাধিক সদস্যের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রভাষক হীরা লাল পাল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে বিদেশে চলে যান। গত বছরের ৩০ অক্টোবর এক চিঠিতে তাঁকে আট সপ্তাহের মধ্যে দায়িত্বে যোগদান করতে বলা হয়।

তা না করে তিনি গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিদেশে চিকিৎসার জন্য ছুটি চান। এ অবস্থায় ছুটি না দিয়ে তাঁকে চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত নেয় সিন্ডিকেট।

এ ছাড়া সহযোগী অধ্যাপক ড. গোলাম আযম দীর্ঘদিন ধরে দেশের বাইরে রয়েছেন। দেশে ফিরে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের জন্য নোটিশ করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। এ কারণে তাঁকে চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত নিয়ে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ট্যান্ডিং কমিটিতে পাঠানো হয়েছে। ডিনদের সমন্বয়ে গঠিত এই কমিটির সভাপতি উপাচার্য। কমিটির সিদ্ধান্তের পরই চাকরিচ্যুতির বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। ’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান কালের কণ্ঠ’কে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের লেখা কপি করে কোনো রেফারেন্স ব্যবহার না করার অভিযোগ তদন্তে সত্যতা পাওয়ায় নৈতিক স্খলনের দায়ে আবু সায়েমকে সহযোগী অধ্যাপক থেকে সহকারী অধ্যাপক পদে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে।


মন্তব্য