kalerkantho


নদী থেকে বালু উত্তোলন

বদরগঞ্জে ইউএনওর নির্দেশে পোড়ানো হলো মেশিন

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রংপুরের বদরগঞ্জে একটি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের শ্যালোমেশিন আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নির্দেশে মেশিনটি পুড়িয়ে ফেলা হয়।

ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পাঠানেরহাট এলাকায়।

মালামাল জব্দ ও মামলা না করে কেন সম্পদে আগুন দেওয়া হলো—এ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয়রা। তবে ইউএনও কাজী আবেদা গুলশানের দাবি, নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলার কারণে শ্যালোমেশিনে আগুন দেওয়া হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পাঠানেরহাট এলাকায় চিকলী নদীর তীরে কেনা জমিতে ব্যাটারি ও খাদ্যপণ্য তৈরির একটি শিল্পপ্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণের কাজ করছেন জাতীয় পার্টির নেতা সাবেক এমপি আনিছুল ইসলাম মণ্ডল। এ জন্য শ্রমিক দিয়ে ওই নদী থেকে বালু তুলছিলেন তিনি। বিষয়টি জানার পর ইউএনও একদল পুলিশ নিয়ে সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় তিনি অবৈধভাবে বালু তোলার অপরাধে শ্যালোমেশিনে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন। এতে মেশিনের পাইপ, বেশকিছু বাঁশসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম পুড়ে যায়।

এ ঘটনার প্রতিবাদ করতে গেলে পুলিশ উপস্থিত লোকজনকে ধাওয়া দেয়।

গ্রেপ্তারের ভয়ে আশপাশের মানুষ সেখান থেকে সরে যায়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন ইউএনওর ওপর। তাদের প্রশ্ন, মালামাল জব্দ না করে কেন আগুন দিয়ে সম্পদ পোড়ানো হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, একই সঙ্গে উপজেলার অন্তত পাঁচটি স্থানে অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। এ নিয়ে ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে স্থানীয়রা। কিন্তু কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। এ নিয়ে এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আনিছুল ইসলাম উল্টো এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ঠিকাদার একই নদী থেকে বালু তুলে নির্মাণকাজ করছে। নদী থেকে যদি বালু তোলা অপরাধ হয় তাহলে কেন তাদের নিষেধ করা হচ্ছে না। ’ এ সময় তিনি মন্তব্য করেন, বালু তোলার অপরাধে ইউএনও মেশিন জব্দ করে মামলা দিতে পারতেন। কিন্তু এ অপরাধে কোনো সম্পদ পোড়াতে পারেন না তিনি।


মন্তব্য