kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভাণ্ডারিয়ায় রাতে ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে মারধর

মালপত্র ভাঙচুর, নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, পিরোজপুর   

২২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় বখাটে হামলা চালিয়ে এক হিন্দু গৃহবধূ ও তাঁর দেবরকে পিটিয়ে জখম করেছে। পরিবারটির বসতঘরের বেড়া ও মালামাল তছনছ করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার শিয়ালকাঠি ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

থানা ও স্থানীয়দের সূত্র জানায়, নদমূলা গ্রামের মোকসেদ আলী মাতুব্বরের ছেলে মাদকসেবী মামুন মাতুব্বর কয়েক দিন ধরে ওই গৃহবধূকে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। এতে রাজি না হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাত দেড়টার দিকে বখাটে মামুন ওই গৃহবধূর ঘরের বেড়া ভেঙে ভেতরে ঢোকে। পরে গৃহবধূর দেবরকে ঘুম থেকে তুলে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর শুরু করে। অন্য কক্ষ থেকে গৃহবধূ ছুটে এসে বাধা দিলে মামুন তাঁকে (গৃহবধূ) চুলের মুঠি ধরে মারধর করে। একপর্যায়ে আহত দুজন চিৎকার দিলে মামুন ঘরের বেড়া ও মালপত্র তছনছ করে পালিয়ে যায়। পরে প্রাণহানির আশঙ্কায় গৃহবধূ স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) সদস্য শওকত হোসেন সাখাওয়াতের বাড়িতে আশ্রয় নেন। ইউপি সদস্য আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান।

গৃহবধূ শুক্রবার মামুন মাতুব্বরের বিরুদ্ধে ভাণ্ডারিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। গৃহবধূর দেবর বলেন, তাঁদের পরিবার মামুনের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

ইউপি সদস্য সাখাওয়াত বলেন, ‘নির্যাতিতদের থানায় মামলা দায়েরের পরামর্শ দিয়েছি। ’

ভাণ্ডারিয়া থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্তের জন্য থানার একজন উপপরিদর্শককে (এসআই) ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। ’


মন্তব্য