kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দুলাভাইকে খুন করে থানায় হাজির শ্যালক

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বোনকে জ্বালাতন করায় ক্ষিপ্ত হয়ে দুলাভাইকে খুন করেছেন—থানায় হাজির হয়ে জানালেন চট্টগ্রামের এক যুবক। পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে এবং লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

গতকাল সোমবার সকালে নগরের কোতোয়ালি থানার পুলিশ টেরিবাজার আফিনী গলির একটি বাসা থেকে লাশটি উদ্ধার করে। খুনের ঘটনা ঘটেছে আগের দিন রবিবার।

নিহত ব্যক্তির নাম অঞ্জন ধর (৩৫)। তিনি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার বাসিন্দা। দুই সন্তানের জনক এই ব্যক্তি ছিলেন পেশায় স্বর্ণকার (গয়না তৈরির কারিগর)। হত্যার কথা স্বীকার করা যুবক বাবলু ধর (২১) জেলার বোয়ালখালী উপজেলার বাসিন্দা। তিনি বোনের বাসায় থাকতেন এবং কাজ করতেন দুলাভাইয়ের সঙ্গে।

এদিকে গত রবিবার রাতে আনোয়ারা উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হয়েছেন কফিল উদ্দিন (৩০) নামের এক যুবক।

চট্টগ্রাম কোতোয়ালি থানার ওসি মো. জসীম উদ্দিন কালের কণ্ঠকে বলেন, বাবুল ধর দুলাভাইকে খুন করে লাশ বস্তাবন্দি করে রাখেন। এরপর থানায় এসে হাজির হন। খুনের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বাবলু ধর পুলিশকে জানিয়েছেন, অঞ্জন তাঁর বোনকে প্রায় প্রতিদিনই নির্যাতন করে আসছিলেন। ঘটনার আগে শনিবার তাঁকেও গালাগাল করেন তিনি। এতেই তিনি ক্ষিপ্ত হন। রবিবার তাঁর বোন দুই বাচ্চাকে নিয়ে স্কুলে যাওয়ার পর দুলাভাইকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেন তিনি।

বাবলু ধর পুলিশকে আরো জানিয়েছেন, খুনের পর তিনি বোনকে মোবাইল ফোনে খবর দেন যে দুলাভাই জরুরি কাজে মানিকছড়ি গেছেন। বাসায় তালা দেওয়া আছে। বোন যেন বাবার বাসায় চলে যায়। বোন তাঁর সাত বছর বয়সী মেয়ে, তিন বছর বয়সী ছেলেকে নিয়ে বাসায় ফিরে তালা দেখে বাবার বাসায় চলে যান।

টেরিবাজারের আফিনী গলির ওই বাসার মালিক পরিমল দত্ত জানান, হাজারি গলির স্বর্ণকার অঞ্জন ধর দুই বছর আগে তাঁর ভবনের পাঁচতলার বাসাটি ভাড়া নিয়েছিলেন। ওই বাসায় তিনি স্ত্রী, দুই সন্তান, মা ও শ্যালককে নিয়ে থাকতেন। পূজার সময় অঞ্জনের মা গ্রামের বাড়ি গেছেন। তিনি এখনো ফিরে আসেননি।


মন্তব্য