kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সোনারগাঁয় অবৈধ গ্যাস সংযোগ, বাণিজ্য

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সোনারগাঁর বারদী ইউনিয়নের ১৫ গ্রামে অবৈধভাবে দেড় হাজার গ্যাস সংযোগ দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির নেতাদের বিরুদ্ধে। বিষয়টি জানার পরও রহস্যজনক কারণে তিতাস গ্যাস, উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ তাঁদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বারদী ইউনিয়নের মিরছিপাড়া, দাসপাড়া, রিবর, সেনপাড়া, নাগপাড়া, চৌধুরীপাড়া, ফুলদী, বাগেরপাড়া, দৌলরদী, আলগীর চরসহ ১৫টি গ্রামে প্রায় দেড় হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া হয়েছে। প্রতি রাইজারের বিপরীতে নেওয়া হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা।

আর এসব সংযোগ দেওয়ার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল হক, তাঁর ছোট ভাই আওয়ামী লীগের কর্মী তাজুল হক, ভাতিজা নাজমুল হক, আলগীর চর গ্রামের সাদেক হোসেন, বারদী ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির সভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির অন্য নেতা রমজান মিয়া, ওহিদ মিয়া, বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান জামান আসাদ এবং রফিক মিয়াসহ বেশ কয়েকজনের একটি সিন্ডিকেট।

এলাকাবাসী জানায়, নিম্নমানের পাইপ ও যত্রতত্র পাইপ বসিয়ে এসব অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া হচ্ছে। এতে ওই এলাকায় প্রতিদিন ছোট-বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। এ ছাড়া এসব অবৈধ সংযোগে গ্যাসের সরবরাহও খুব ভালো নয়। এতে করে গ্রাহকরা ঠিকমতো রান্না করতে পারে না। শুধু তাই নয়, গ্যাস সংযোগ নিয়ে অবৈধ সংযোগকারীদের মধ্যে কয়েকবার সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।   দৌলরদী এলাকার লোকমান মিয়া ও মতিন মিয়া বলেন, ‘অনেক কষ্ট করে ৪৫ হাজার টাকা দিয়ে গ্যাস সংযোগ নিয়েছি। কিন্তু ঠিকমতো গ্যাস না থাকায় আমাদের রান্নাবান্না করতে খুব সমস্যা হচ্ছে। ’

ফুলদী গ্রামের আমেনা বেগম ও সুরাইয়া আক্তার বলেন, ‘ধারকর্জ করে গ্যাস সংযোগ নিলেও কোনো উপকারে আসছে না। বেশির ভাগ সময় গ্যাস না থাকায় আমরা সংযোগ নিয়েও হতাশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছি। ’

আলগীর চর গ্রামের মামুন মিয়া ও সাত্তার আলী জানান, গ্যাস সংযোগ দিয়ে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির নেতারা সিন্ডিকেট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। গরিব লোকদের গ্যাস সংযোগ নিতে বাধ্য করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বারদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জহিরুল হক ও বারদী ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সারা দেশে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়ায় আমরাও এলাকায় গ্যাস সংযোগ দিচ্ছি। ’ তাঁরা অতিরিক্ত টাকা আদায়ের কথা অস্বীকার করেছেন।

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানির সোনারগাঁ শাখার ব্যবস্থাপক আব্দুল মোমেন তালুকদার জানান, অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রদানকারীদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। এদের বিরুদ্ধে খুব শিগগির অভিযান পরিচালনা করা হবে।


মন্তব্য