kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফাও খেতে না দেওয়ার জের

শাবিপ্রবি ছাত্রলীগের রেস্টুরেন্টে হামলা

প্রতিবাদে ব্যবসায়ীদের সড়ক অবরোধ

শাবিপ্রবি প্রতিনিধি   

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ফাও খেতে না দেওয়ায় রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়ে দুই কর্মচারীকে পিটিয়ে আহত করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে গোলাবী নামের রেস্টুরেন্টে এ হামলা চালানো হয়।

রাতে এ ঘটনার প্রতিবাদে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক এক ঘণ্টা অবরোধ করে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

হামলায় গুরুতর আহত দুই কর্মচারী আলমগীর হোসেন ও মুস্তাকিম আহমেদকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে (সিওমেক) ভর্তি করানো হয়েছে।

জানা যায়, ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থর অনুসারী সহসম্পাদক মোশারফ হোসেন রাজুর নেতৃত্বে পাঁচ-ছয়জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী রেস্টুরেন্টে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এ বছরের জানুয়ারিতে র‌্যাগিংয়ের অভিযোগে রাজুকে সাময়িক বহিষ্কার করেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

রেস্টুরেন্টের ম্যানেজার জাকারিয়া হোসেন বলেন, তারা সব সময় খেয়ে বিল না দিয়ে চলে যায়। আজকে ফাও খেতে না দেওয়ায় কর্মচারীদের ওপর হামলা চালায় এবং রেস্টুরেন্ট ভাঙচুর করে।

এ ব্যাপারে জানতে রাজু ও অসীমকে কয়েকবার ফোন দেওয়া হলে তারা সংযোগ কেটে দেয়। ছাত্রলীগ সভাপতি সঞ্জীবন চক্রবর্তী পার্থ বলেন, ‘একটু ঝামেলা হয়েছিল। আমার সঙ্গে ম্যানেজারের কথা হয়েছে। বিষয়টি মিটমাট হয়ে গেছে। ’

শাবির ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার বলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে তারা (ব্যবসায়ী) অবরোধ স্থগিত করে।

ভর্তি ফরমের বর্ধিত দাম প্রত্যাহার দাবি

ভর্তি ফরমের বর্ধিত দাম প্রত্যাহারের দাবিতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল, অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে ‘ভর্তি ফরমের মূল্যবৃদ্ধি বিরোধী শিক্ষার্থী মঞ্চ’। তাদের বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে প্রশাসন দাবি না মানায় রবিবার ক্যাম্পাসে এসব কর্মসূচি পালন করে তারা। দাবি না মানা হলে আরো কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে এসব কর্মসূচি থেকে। তবে প্রশাসন জানিয়েছে, জরুরি একাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সকালে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার ভবনের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ‘শিক্ষার্থী মঞ্চ’। এ সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ অন্যান্য সংগঠনের কর্মীরা উপস্থিত ছিল। মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে উপাচার্য ভবনের সামনে অবস্থান নেয়।


মন্তব্য