kalerkantho


সাভারে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যুবক হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা)   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



সাভার উপজেলায় মোবাইল ফোনে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এরশাদুজ্জামান রুবেল নামের এক যুবককে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। গত সোমবার রাতে উপজেলার ভড়ারি গ্রামের আসলাম মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার পর ওই যুবকের নামে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে গেলে সন্দেহভাজন হিসেবে আসলামকে আটক করে পুলিশ। পরে তার স্ত্রী সুফিয়া বেগমকেও আটক করা হয়। রুবেল ঢাকার কেরানীগঞ্জের লঙ্গারচর গ্রামের সাদেক আলীর ছেলে। স্ত্রী ফারজানা বেগম ও সন্তানদের নিয়ে ভড়ারি গ্রামের আছিমুদ্দিনের বাড়ির একটি কক্ষে ভাড়া থাকতেন তিনি। পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আসলাম মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া পোশাক শ্রমিক দুই ভাই মইনুল ও হানিফের কাছে দুই হাজার টাকা পেতেন রুবেল। ওই টাকা নিতে সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে তিনি বাসা থেকে বের হয়ে যান। পাওনা টাকা নিয়ে ওই দুই ভাইয়ের সঙ্গে তাঁর কথাকাটাকাটি হলেও স্থানীয়রা তখনই বিষয়টি সমাধান করে দেয়। পরে রাত ১০টার দিকে মোবাইল ফোনে আসলাম রুবেলকে তার বাড়িতে যেতে বলে। ওই বাড়িতে গেলে আসলামের সহযোগিতায় মইনুল ও হানিফ তাদের কক্ষে রুবেলকে প্রথমে লাঠিপেটা করে। পরে বঁটি দিয়ে কুপিয়ে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায় দুই ভাই। স্থানীয়রা রুবেলকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ওই ঘটনার পর আসলাম রুবেলের নামে সাভার মডেল থানায় একটি জিডি করতে গেলে পুলিশের সন্দেহ হয়। এ সময় তাকে আটক করা হয়। পরে তার স্ত্রীকেও আটক করে পুলিশ। এ ব্যাপারে সাভার সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মাহবুবুর রহমান জানান, রুবেলের শরীরে কোপানোর চিহ্ন রয়েছে। আসলাম মিয়া ও তার স্ত্রী সুফিয়া বেগমকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যদেরও আটকের চেষ্টা চলছে। এএসপি আরো জানান, প্রাথমিকভাবে মইনুল ও হানিফের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের চৈত্রঘাট এলাকার খুরশেদ মিয়ার ছেলে।


মন্তব্য