kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


টঙ্গিবাড়ীতে প্রেম নিয়ে বিরোধ

হামলায় যুবক নিহত, আহত ৩

অভিযুক্ত আটক

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে হামলায় এক যুবক নিহত ও তিনজন আহত হয়েছেন। গত সোমবার রাতে উপজেলার পুরা গ্রামে প্রেম নিয়ে বিরোধে এ হামলা হয়।

নিহত ফয়সাল ঢালী (২২) সদর উপজেলার ঢালীকান্দির নোয়াদ্দা গ্রামের নজরুল ঢালীর ছেলে। একই গ্রামের আহত শাহিদুল ইসলাম (২২), আকাশ মিয়া (২২) ও মোহাম্মদ মাসুমকে (২২) আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত মিরাজ মিয়াকে (২৩) পিটুনির পর পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। মিরাজ টঙ্গিবাড়ীর নয়া দীঘিরপাড় গ্রামের প্রবাসী সিরাজ মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, নোয়াদ্দা গ্রামের চার বন্ধু মিলে পাশের পুরা গ্রামে পূজা দেখে রাত ৮টার দিকে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় ‘প্রেমঘটিত’ ও আগের মারামারির জের ধরে মিরাজ, তার বন্ধু সম্রাট, দিপুসহ কয়েক যুবক মিলে রাস্তায় ওই চারজনের ওপর হামলা চালিয়ে তাঁদের এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। গুরুতর আহত চারজনকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসক ফয়সালকে মৃত ঘোষণা করেন এবং বাকি তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠান।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সাবিদ ইবনে আব্দুল্লাহ জানান, ফয়সালের পেটে ছুরিকাঘাতের কারণেই তিনি মরা গেছেন। হাসপাতালে আসার আগেই ঘটনাস্থলে বা পথে তাঁর মৃত্যু হয়। অন্যদের আঘাতও গুরুতর।

ফয়সালের বাবা কৃষক নজরুল ঢালী জানান, ফয়সাল সরকারি হরগঙ্গা কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পাস করেছেন। এখন সম্মান শ্রেণিতে ভর্তির অপেক্ষায় ছিলেন। ফয়সাল পরিবারের কৃষিকাজে সহায়তা করছিলেন।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাজেদুল আলম জানান, এক কলেজ ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমঘটিত বিষয় নিয়ে ফয়সাল ও মিরাজের মধ্যে কয়েক দিন আগে মারামারি হয়। এর জেরেই এ হামলা হয়েছে। আটক মিরাজকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে। ফয়সালের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

টঙ্গিবাড়ী থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, এক ছাত্রীর সঙ্গে ফয়সালের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। মিরাজও ছাত্রীটিকে পছন্দ করত। এ নিয়ে বিরোধ বাধে। মিরাজ এলাকায় বখাটে হিসেবে পরিচিত। লিখিত অভিযোগ পেলে মামলাসহ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য