kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বাঁশখালীতে সেই স্কুল ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ভুয়া জন্ম সনদে বিয়ের প্রস্তুতি নেওয়ার পর দৈনিক কালের কণ্ঠে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় বাঁশখালীর কাথারিয়া গ্রামে দশম শ্রেণির সেই ছাত্রীর বিয়ে বন্ধ হয়ে গেছে। গতকাল মঙ্গলবার ওই ছাত্রীর বিয়ে হওয়ার কথা ছিল।

তবে এখনো জন্ম সনদ নিতে কনে ও বরপক্ষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে কাথারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘আমি কোনো স্কুল ছাত্রীকে বাল্যবিয়ের জন্য জন্ম সনদ দিতে পারি না। প্রশাসনিকভাবে দিকনির্দেশনা আছে স্কুলের ভর্তির রেজিস্ট্রেশন কার্ড ছাড়া কাউকে জন্ম সনদ দেওয়া যাবে না। তা ছাড়া জন্ম সনদ জন্মের পর পর দেওয়া হয়। বিয়ের আগে জন্ম সনদ নেওয়ার হিড়িক মানে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের ফাঁদে ফালানো ছাড়া কিছু নয়। বাল্যবিয়ে বন্ধে সবাইকে সচেতন হতে হবে। এক শ্রেণির মানুষ এই বাল্যবিয়ে নিয়ে নানামুখী বাণিজ্যে ব্যস্ত। পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পরিপ্রেক্ষিতে বিয়েটা বন্ধ হয়েছে। না হলে বিয়েটা হয়েই যেত। ভুয়া জন্ম সনদ দিয়ে অহরহ বিয়ে হচ্ছে। অথচ এদের বিরুদ্ধে আইনের কোনো প্রয়োগ নেই। ’

কাথারিয়া ইউনিয়নের কাজি মৌলভী মোহাম্মদ নুরুল আমিন বলেন, ‘পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের কারণে প্রশাসনের ভয়ে বিয়েটা বন্ধ হয়ে গেছে শুনেছি। ’

উল্লেখ্য, কাথারিয়া ইউনিয়নের কাথারিয়া গ্রামের দশম শ্রেণির ওই ছাত্রীর সঙ্গে একই ইউনিয়নের বাঘমারা গ্রামের মৃত আবু ছালেহের ছেলের বিয়ের দিন ধার্য ছিল মঙ্গলবার। ছাত্রীর বয়স প্রমাণের জন্য তার অভিভাবকরা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভুয়া জন্ম সনদ নেন। বিষয়টি জানাজানির পর সংবাদ প্রকাশিত হলে কনে ও বরের পরিবার প্রশাসনের ভয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেয়। বাঁশখালী থানার উপপরিদর্শক বাবুল আজাদ বলেন, পারিবারিকভাবে বিয়ে বন্ধ করে দেওয়ায় আইনি পদক্ষেপ নিতে হয়নি।


মন্তব্য