kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


রায়পুরে ভুল চিকিৎসায় ছাত্রের মৃত্যু

এক লাখ ২০ হাজার টাকায় সমঝোতা!

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



লক্ষ্মীপুরের রায়পুর বাস টার্মিনাল এলাকায় মা ও শিশু প্রাইভেট হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় মাদ্রাসা ছাত্র মো. সিয়ামের (১২) মৃত্যুর পর এক লাখ ২০ হাজার টাকায় তার পরিবারের সঙ্গে সমঝোতা করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এ সমঝোতা হয়।

এর আগে সোমবার রাতে ওই হাসপাতালে অপারেশনের পর তার মৃত্যু হয়। সিয়াম রায়পুর পৌরসভার পশ্চিম মধুপুর এলাকার দুবাইপ্রবাসী আমির হোসেনের ছেলে ও সোনাপুর দাখিল মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ছিল।

জানা যায়, সিয়ামের পেটের ব্যথা ও বমি হলে সোমবার দুপুরে তাকে ওই হাসপাতালে আনা হয়। রাতে ওই হাসপাতালে ঢাকা থেকে আসা ডা. রুহুল আমিন সিয়ামকে দেখে অ্যাপেন্ডিসাইটিস হয়েছে জানিয়ে অপারেশন করতে বলেন। এ জন্য ১০ হাজার টাকায় চুক্তি হয়। সিয়ামের শারীরিক কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করেই ডাক্তার অপারেশন করেন। এ সময় ছটফট করে সে মারা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় লোকজন জানায়, ওই মাদ্রাসা ছাত্রের মৃত্যুর খবরে উত্তেজিত স্বজনরা রাতেই হাসপাতালের সামনে জড়ো হয়। একপর্যায়ে তারা হামলা-ভাঙচুরের চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হাসপাতাল থেকে পরিচালক শহিদুল ইসলাম রানা ও হাসপাতাল ফার্মেসির তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মালেককে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। নিহত শিশুর লাশ অ্যাম্বুল্যান্সে করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রাতভর নিহতের পরিবারের সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। পরদিন মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে নগদ ২০ হাজার টাকা ও এক লাখ টাকার একটি ব্যাংকের চেক দিয়ে সমঝোতা করা হয়। পরে তারা লাশ বাড়িতে নিয়ে যায়।

সিয়ামের মা পারুল বেগম বলেন, ‘লাশের ময়নাতদন্ত ও বিভিন্ন ঝামেলা এড়াতে থানায় মামলা করা হয়নি। বিষয়টি আমরা সমাধান করে নিয়েছি। ’

এ ব্যাপারে রায়পুর থানার ওসি লোকমান হোসেন বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেননি। টাকার বিনিময়ে সমঝোতার বিষয়টি আমি জানি না। ’


মন্তব্য