kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দামুড়হুদায় রোগীর মৃত্যু

হাসপাতালে তালা দিয়ে পালাল কর্তৃপক্ষ

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে রবিবার রাতে ভুল চিকিৎসায় গৃহবধূর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে কর্তৃপক্ষ হাসপাতালের প্রধান গেটে তালা লাগিয়ে সটকে পড়ে।

এদিকে খবর পেয়ে স্থানীয় বাজারের শত শত লোক হাসপাতালের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করে।

ঘটনার শিকার গৃহবধূ রহিমার বাবা মোহাম্মদ আলী জানান, রবিবার বিকেলে তাঁর মেয়ে গলব্লাডারে পাথর নিয়ে উপজেলার দামুড়হুদা প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসে। হাসপাতালের মালিক জাহাঙ্গীর হোসেন রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে নেন। পরে তাকে অপারেশনের জন্য তাড়াহুড়ো শুরু করেন। এ সময় রহিমার স্বামী জানায় যে রহিমা শারীরিকভাবে দুর্বল, দুর্বলতা না কাটিয়ে এখনই অপারেশন করা ঠিক হবে না। কিন্তু সবার অমতেই রবিবার বিকেলে অপারেশন করার পর রোগীর অবস্থার অবনতি হয়। দ্রুত হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীকে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত করিমনে করে চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় মডার্ন ক্লিনিকে পাঠায়। সেখান থেকে পরে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। রবিবার রাত ৮টার দিকে সেখানে মারা যায় দুই সন্তানের মা রহিমা বেগম।

দর্শনার মডার্ন ক্লিনিকের মালিক ডা. তরিকুল ইসলামের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে দামুড়হুদা প্রাইভেট হাসপাতালটি গতকাল সোমবার সকাল থেকে বন্ধ থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে হাসপাতালের পাশের এক বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আগেও রোগী মারা গেলে দু-তিন দিন ক্লিনিক বন্ধ রাখা হয়েছিল।

দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু বলেন, প্রয়োজনীয় মেশিনপত্র না থাকায় সঠিকভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যাচ্ছে না। তার ওপর অদক্ষ চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা করানোর কারণে এ হাসপাতালে একের পর এক রোগী মারা যাচ্ছে।


মন্তব্য