kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হবিগঞ্জে একের পর এক ডাকাতি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



হবিগঞ্জে আবারও দুজন প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। গত এক সপ্তাহে এ নিয়ে শহরে ৫ বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটল।

এ ছাড়া জেলার চুনারুঘাট পৌর শহরের বাগবাড়ী গ্রামের এক বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, প্রবাসী ইসমাইল মিয়া মাসখানেক দেশে থেকে গত শনিবার লন্ডনে চলে যান। রাত ৩টার দিকে মুখোশ পরা চার ডাকাত বাসার পেছনের সুপারিগাছ দিয়ে উঠে দোতলার গ্রিল ভেঙে ভেতরে ঢুকে অস্ত্রের মুখে পরিবারের শিশুদের জিম্মি করে সবাইকে চুপ থাকতে বলে। অন্যথায় শিশুদের হত্যা করার হুমকি দেয়। পরে সবার হাত-পা বেঁধে ১৭ ভরি স্বর্ণালংকার, ৭০ হাজার টাকা, ছয়টি মোবাইল ফোনসেটসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়।

তবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হবিগঞ্জ সদর থানার এসআই মিজানুর রহমানের দাবি, এটি ডাকাতির ঘটনা নয়। ডাকাতির ঘটনা হতে হলে পাঁচজন বা তার বেশি লোক থাকতে হয়। বাসার লোকজনই বলছে, সেখানে ছিল চারজন এবং তাদের বয়সও কম। এ ছাড়া তাদের হাতে ছিল ছুরি ও চাকু।

বাসার মালিক ইসমাইল হোসেনের মেয়ের জামাই উজ্জ্বল মিয়া জানান, ডাকাতির ঘটনায় তারা থানায় মামলা করবেন।

এদিকে জেলার চুনারুঘাট পৌর শহরের বাগবাড়ী গ্রামে এক রাতে দুটি বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে। ডাকাতরা এ সময় পাঁচ লাখ টাকার মালামাল লুটে নেয়। শনিবার গভীর রাতে ওই ঘটনা ঘটে।

সূত্রমতে, শনিবার রাত দেড়টার দিকে বাগবাড়ী গ্রামের মৃত বীর মুুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আজিজের (অবসরপ্রাপ্ত সেনা) বাড়িতে দরজা ভেঙে পরিবারের সদস্যদের হাত-পা বেঁধে দুই বছরের শিশুকে গলায় ছুরি ধরে জিম্মি করে। এ সময় সমবায় কর্মকর্তা কাউছার আহমেদকে ব্যাপক মারধর করা হয়। পরে আলমারি ভেঙে আট ভরি স্বর্ণালংকার, চারটি দামি মোবাইল ফোনসেটসহ ১০ হাজার টাকা লুটে নেয় তারা।

পরে একই গ্রামের কুয়েতপ্রবাসী দুলদুল মিয়ার ঘরের গ্রিল ভেঙে ভেতরে ঢুকে মুখোশ পরা ডাকাতরা আলমিরা ভেঙে দুই লাখ টাকা লুটে নিয়ে যায়। এ সময় তাদের চিৎকার শুনে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে ডাকাতরা পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে চুনারুঘাট থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ঘটনায় চুনারুঘাট থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

চুনারুঘাট থানার ওসি (তদন্ত) ইকবাল হোসেন জানান, এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য