kalerkantho


হবিগঞ্জের চার শিশুহত্যা

ঘুচল আইনজীবী নিয়োগ জটিলতা

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



হবিগঞ্জের আলোচিত চার শিশুহত্যা মামলায় আইনজীবী নিয়োগের জটিলতার অবসান হয়েছে। বাদীপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নতুন আইনজীবী নিয়োগ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক সাবিনা আলম। গতকাল রবিবার জেলা প্রশাসকের এক আদেশে হবিগঞ্জের সিনিয়র আইনজীবী ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজনকে এ হত্যা মামলা পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

এর আগে মামলার বাদী আব্দাল মিয়া জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন। তিনি আবেদনে বলেন, মামলাটি চাঞ্চল্যকর হওয়ায় এটি রাষ্ট্রপক্ষের নিয়োজিত স্পেশাল পিপি আবুল হাসেম মোল্লা মাসুমের একার পক্ষে পরিচালনা সম্ভব নয়। তিনি একা মামলা পরিচালনা করলে বাদীর ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

এদিকে মামলার নির্ধারিত তারিখে গতকাল বিষয়টি উত্থাপন করে রাষ্ট্রপক্ষের পূর্ববর্তী আইনজীবী স্পেশাল পিপি আবুল হাসেম মোল্লা মাসুমের পরিবর্তে আইনজীবী ত্রিলোক কান্তি চৌধুরীকে পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন আগামী ধার্য তারিখ থেকে মামলা পরিচালনা করবেন। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশে আগামী ধার্য তারিখের আগে মামলার সিডিসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজনের কাছে হস্তান্তরের নির্দেশ দেওয়া হয়।

গতকাল দুপুরে এ মামলার নির্ধারিত তারিখ থাকায় আসামি আব্দুল আলী বাঘাল, তাঁর ছেলে জুয়েল, রুবেল, হাবিবুর রহমান আরজু, ছায়েদ ওরফে সাহেদকে জেলা দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় মামলার প্রধান আসামি আব্দুল আলী বাঘালের জামিন আবেদন করেন তাঁর আইনজীবীরা।

শুনানি শেষে তাঁর জামিন নামঞ্জুর করে আগামী ১৬ অক্টোবর মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ধার্য করেন জেলা ও দায়রা জজ আতাব উল্লাহ।

এদিকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে ঘটনার দায় স্বীকার করা নিয়ে কোর্টহাজতে আসামি আরজু ও সাহেদের মাঝে বাগিবতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে সাহেদ ক্ষিপ্ত হয়ে আরজুর ওপর হামলা চালান। এতে আরজুর মাথা ফেটে যায়। পরে তাঁকে উদ্ধার করে পুলিশ পাহারায় হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আরজুর স্ত্রী জামিনা আক্তার জান্নাত।

প্রসঙ্গত, গত ১২ ফেব্রুয়ারি বাহুবলের সুন্দ্রাটিকি গ্রামের চার শিশু নিখোঁজ হয়। পাঁচ দিন পর বাড়ির অদূরে বালুমহাল থেকে মাটিচাপা দেওয়া অবস্থায় তাদের লাশ উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।


মন্তব্য