kalerkantho


নারায়ণগঞ্জে সম্প্রীতির বন্ধন

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’—আদিকাল থেকেই এ চেতনা ধারণ করে চলেছে নারায়ণগঞ্জবাসী। রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মতো ধর্মীয় (ঈদ, পূজা, বড়দিন, বৌদ্ধ পূর্ণিমা) অনুষ্ঠানেও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতি দেখা যায় এই জেলায়। এর উত্কৃষ্ট উদাহরণ শারদীয় দুর্গাপূজা। অন্য ধর্মাবলম্বীরাও অংশ নেয় এ উৎসবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলায় এবার ১৯৬টি মন্দির ও মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে। এর মধ্যে ৬৫টি পূজা হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ মহানগরে। সেখানে দুটি পূজা কমিটির সভাপতি মুসলমান। তাঁরা হলেন নিতাইগঞ্জ এলাকার প্রজন্ম প্রত্যাশা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি মো. মাসুদুর রহমান মাসুদ ও খানপুর সিদ্ধিগোপাল আখড়া পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি মঞ্জুর হোসেন। আরো কিছু পূজা কমিটিতেও (উপদেষ্টাসহ) আছেন মুসলমান। যেমন পুরান পালপাড়া পূজা উদ্যাপন কমিটির কার্যকরী সদস্য হিসেবে আছেন জসিম উদ্দিন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০০ সাল থেকে প্রজন্ম প্রত্যাশা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন বাংলাদেশে পূজা উদ্যাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি শংকর সাহা। ২০১৫ সালে তিনি (কমিটির সভাপতির পদ থেকে) পদত্যাগ করলে কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেন মাসুদুর রহমান মাসুদ। সিদ্ধিগোপাল আখড়া পূজা উদ্যাপন কমিটি ১২৪ বছর ধরে পূজার আয়োজন করে আসছে। ১৫ বছর ধরে এ কমিটির সভাপতি পদে আছেন মঞ্জুর হোসেন। তাঁর আগে কমিটির সভাপতি ছিলেন মহাবিষু দাস। মঞ্জুর হোসেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জমসের আলী জন্টুর বড় ভাই।

প্রজন্ম প্রত্যাশা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি মাসুদুর রহমান মাসুদ বলেন, ‘আমরা ছোট থেকে বড় হয়েছি একসঙ্গে পূজা ও ঈদের আনন্দ ভাগ করে। ধর্ম যার যার, উৎসব আমাদের সবার। ’

সিদ্ধিগোপাল আখড়া পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতি মঞ্জুর হোসেন বলেন, ‘আমরা সবাই ভাই, ভাইয়ের মতো একে অন্যের আনন্দ ভাগাভাগি করে থাকি। এলাকার সবার অনুরোধে আমি পূজা কমিটির সভাপতি। ’

সিদ্ধিগোপাল আখড়া পূজা উদ্যাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিমাই দে বলেন, ‘পূজা কমিটিতে অন্য ধর্মের লোক থাকলেও কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয় না। বরং পূজার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দায়িত্ব নিয়ে সব কাজ করে থাকেন মঞ্জুর হোসেন। পূজার খরচের বড় অংশ সভাপতি বহন করে থাকেন। এ ছাড়া এ কমিটিতে আরো দুজন মুসলিম উপদেষ্টা হিসেবে আছেন। প্রধান উপদেষ্টা মো. আলীনূর ও ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জমসের আলী জন্টু। ’

নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি শংকর সাহা বলেন, ‘এ পরিষদের দায়িত্ব আসার পর থেকেই কাজের চাপ বাড়তে থাকে। চাপ কমানোর জন্যই প্রজন্ম প্রত্যাশা পূজা উদ্যাপন কমিটির সভাপতির পদ ছেড়ে আসি। ’

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, ‘ধর্মীয় এই সম্প্রীতি, ভ্রাতৃত্বের বন্ধনই বাংলাদেশের আসল পরিচয়। এটা নারায়ণগঞ্জের মতো সব জেলায় ছড়িয়ে পড়ুক। ’


মন্তব্য