kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শারদীয় দুর্গোৎসব

শেরপুরে অষ্টধাতুর প্রতিমা

শেরপুর প্রতিনিধি   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



শেরপুরে অষ্টধাতুর প্রতিমা

শেরপুর শহরের ক্রিয়াযোগ উপাসনালয়ে ৩৩ ইঞ্চি উচ্চতার অষ্টধাতুর প্রতিমা। ছবি : কালের কণ্ঠ

শেরপুরে এবার প্রথম অষ্টধাতু নির্মিত দুর্গা প্রতিমা স্থাপন করা হয়েছে। শহরের নয়আনী বাজার মহল্লায় পোদ্দার কমপ্লেক্সে নবপ্রতিষ্ঠিত ক্রিয়াযোগ উপাসনালয়ে ৩৩ ইঞ্চি উচ্চতার প্রতিমাটি দেবী পক্ষের প্রথম দিন মহালয়ায় স্থাপন করা হয়।

সেদিন থেকে নবরাত্রিব্যাপী শৈলপুত্রী, ব্রহ্মচারিণী, চন্দ্রঘণ্টা, কুষ্মাণ্ড, স্কন্দমাতা, কাত্যায়নী, কালরাত্রি, মহাগৌরী ও সিদ্ধিদাত্রীরূপে পূজিত হচ্ছেন নবদুর্গা।

গতকাল শুক্রবার দেবীর বোধনের মধ্য দিয়ে দেবীদুর্গার মূল পূজা শুরু হয়। মন্দির কর্তৃপক্ষ জানায়, শনি (আজ), রবি ও সোমবার পূজার সঙ্গে ক্রিয়াশক্তির আরাধনা ও আত্মপূজার আয়োজন করা হয়েছে। বিপদতাড়িনী আদ্যাশক্তির আবির্ভাবের কারণে পৃথিবী থেকে বর্ণে বর্ণে, জাতিতে জাতিতে ভেদবুদ্ধি, নিষ্ঠুরতা, রক্তপাত, মূঢ়তাসহ সব সংকীর্ণতা পঙ্কিলতার অবসান ঘটবে।

ক্রিয়াযোগ উপাসনালয়ের সভাপতি জীবন সাহা জানান, মানুষের শরীরে সোনা, রুপা, তামা, লোহা, দস্তা, রাং, সিসা, পারদ—মূল্যবান এই অষ্টধাতুর নানা প্রভাব রয়েছে। এ জন্য ক্রিয়াযোগ উপসনালয়ে অষ্টধাতুর দুর্গা প্রতিমা স্থাপন করা হয়েছে।

উপাসনালয়টির প্রতিষ্ঠাতা ব্রহ্মচারী শান্তানন্দ জানান, মানুষের শরীরে আটটি ইন্দ্রিয় গুণ আছে। এগুলো হলো মাটি, পানি, আগুন, বায়ু, আকাশ, মন, বুদ্ধি ও অহংকার। এগুলো একত্রে যৌথ গুণ। আর দুর্গা শক্তির আধার। দুর্গা নামের মধ্যেই দেবীর বিপদনাশিনী রূপ নিহিত। দুর্গা বানানের প্রথম অক্ষর ‘দ’-এর অর্থ দৈত্যনাশক, ‘উ’-কার বিঘ্ননাশক, ‘রেফ’ রোগনাশক, ‘গ’ পাপনাশক, ‘আ’-কার ভয় ও পাপনাশক। মানুষের যৌথ গুণগুলো নিয়ন্ত্রণ করে নিজের ভেতরে দুর্গার শক্তিকে অনুভব করার জন্যই অষ্টধাতুর দুর্গা প্রতিমা স্থাপন।

ক্রিয়াযোগ উপাসনালয়ে দুর্গোৎসবের পুরোহিত দ্বিজরাজ আচার্য জানান, অষ্টধাতুর প্রতিমাটি বিসর্জন দেওয়া হবে না। শুধু দেবীদুর্গার তর্পণ (হাতে থাকা আয়না) বিসর্জন দেওয়ার মাধ্যমে বিসর্জনকাজ সম্পন্ন হবে। উপসনালয়ে প্রতিমাটি থাকবে এবং প্রতিদিন পূজা হবে।


মন্তব্য