kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজ

নিয়মিত বেতন তোলেন অনুপস্থিত শিক্ষক

স্বাক্ষর করেন না অন্য একজন

পিরোজপুর প্রতিনিধি   

৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পিরোজপুরের নাজিরপুর ডিগ্রি কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. ইয়াকুব আলী বছরের পর বছর কলেজে অনুপস্থিত থেকেও নিয়মিত বেতন-ভাতা নিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ছাড়া তিনি হাজিরা খাতায় একসঙ্গেই সব স্বাক্ষর করেন।

অন্যদিকে কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ ইব্রাহীম আলী শেখ নিয়মিত কলেজে এলেও হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন না। বিষয়টি নিয়ে অন্য শিক্ষকদের মধ্যে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, হাজিরা খাতায় প্রত্যেক শিক্ষকের জন্য আলাদা পাতা রয়েছে। এতে মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ইয়াকুব আলীর পাতায় চলতি শিক্ষা বর্ষে অক্টোবর মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত অগ্রিম স্বাক্ষর করা আছে। আর ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক ইব্রাহীম আলী গত জুন থেকে চলতি মাস পর্যন্ত কোনো স্বাক্ষরই করেননি।

এ বিষয়ে ওই কলেজের একাধিক শিক্ষক জানান, মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ইয়াকুব আলীর বাড়ি জেলার কাউখালী উপজেলায়। তিনি সেখানে ব্যবসা করেন। এ কারণে দুই-তিন মাসের মধ্যে একবার কলেজে আসেন। কিন্তু তিনি নিয়মিত বেতন-ভাতা তোলেন। শিক্ষকরা জানান, তিনি গত চার বছরে মাত্র দুটি ক্লাস নিয়েছেন। গত মাসের ১ সেপ্টেম্বর একবার এসে অক্টোবরের ৯ তারিখ পর্যন্ত হাজিরা খাতায় অগ্রিম স্বাক্ষর করে রেখে গেছেন। কলেজের অধ্যক্ষের প্রশ্রয়ে তিনি বছরের পর বছর ধরে এমন অনিয়ম করে যাচ্ছেন বলেও অভিযোগ শিক্ষকদের।

একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির মনোবিজ্ঞান বিষয়ের শিক্ষার্থীরা বলে, ‘আমরা ওই স্যারকে (ইয়াকুব আলী) চিনি না। ’

অভিযুক্ত শিক্ষক মো. ইয়াকুব আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে অগ্রিম স্বাক্ষর ভুলে হয়েছে দাবি করে বলেন, ‘আমি  বেশির ভাগ সময় কলেজের কাজে বাইরে থাকি। ’

এদিকে ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শিক্ষক ইব্রাহীম আলী শেখের জন্য নির্ধারিত স্বাক্ষর পাতায় দেখা গেছে, তিনি চলতি শিক্ষা বর্ষের জুলাই থেকে গত ২ অক্টোবর পর্যন্ত কোনো স্বাক্ষর করেননি।

এ বিষয়ে কলেজের অন্য শিক্ষকরা জানান, সরকারি বেতন-ভাতা তুললেও হাজিরা খাতায় তাঁর (ইব্রাহিম আলী) স্বাক্ষর না করার বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে শিক্ষক ইব্রাহিম আলী শেখ বলেন, ‘আমি নিয়মিত হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করি। ’

কলেজের অধ্যক্ষ মো. আফজাল হোসেন খান বলেন, ‘এসব ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। ’


মন্তব্য