kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


শতবর্ষী পুকুর ভরাট বন্ধের দাবি

মাদারীপুরে মানববন্ধন

মাদারীপুর প্রতিনিধি   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



মাদারীপুর শহরের সবুজবাগ এলাকার ১ নম্বর পুলিশ ফাঁড়ির সামনে প্রায় শতবর্ষী পুকুরটি ভরাটের প্রক্রিয়া চলছে। ইতিমধ্যে বালু দিয়ে ভরাটের জন্য পাইপ বসানোর কাজ শুরু হলে এর প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার এলাকাবাসী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

তা ছাড়া পুকুর ভরাট বন্ধের দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয় পৌরসভার মেয়র।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে এলাকাবাসী জেলা প্রশাসকের কাছে অবিলম্বে পুকুর ভরাটের পরিকল্পনা প্রত্যাহার ও ভরাটের জন্য নিয়ে আসা পাইপ সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানায়। অন্যথায় বৃহত্তম আন্দোলন কর্মসূচি পালনের হুঁশিয়ারি জানায় তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, শহরের সবুজবাগ লঞ্চঘাট এলাকার পুকুরটিতে প্রায় এক শ বছর ধরে স্থানীয় জনগণ নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজ করে আসছে। পুকুরটির আদি নাম হরেকৃষ্ণ সীতানাথ হলেও পরে কো-অপারেটর পুুকুর নামে পরিচিতি লাভ করে। এক সময় পুকুরটি ১ নম্বর পুলিশ ফাঁড়ি পুকুর নামে পরিচিতি লাভ করলেও স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায় একে হরেকৃষ্ণ সীতানাথ পুকুর হিসেবে পুঁজা করে থাকে।

এলাকাবাসী জানায়, দীর্ঘদিন ধরে সরকারি এই পুকুরটিতে লিজ দিয়ে মাছ চাষ করা হচ্ছিল। সম্প্রতি পুকুরটি ভরাটের পরিকল্পনা করা হয়। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও স্থানীয়দের চাপের মুখে তা আর সম্ভব হয়নি। কিন্তু এবার ঐতিহ্যবাহী পুকুরটি ভরাট করতে ইতিমধ্যে পাইপ বসানোর কাজ শুরু করায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এলাকাবাসীর দাবি, ইতিমধ্যে শহরের প্রায় সব পুকুর, খাল, জলাশয় ভরাট করে ফেলা হয়েছে। এ পুকুরটিও ভরাট হয়ে গেলে পরিবেশ যেমন ভারাসাম্য হারাবে তেমনি স্থানীয়রাও সমস্যায় পড়বে। এ ব্যাপারে পরিবেশবাদী সংগঠন ফ্রেন্ডস অব নেচারের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক রাজন মাহমুদ বলেন, এক এক করে শহরের খাল, পুকুরসহ বিভিন্ন জলাশয় বালু দিয়ে ভরাট করা হয়েছে। তাতে পরিবেশ ভারসাম্য হারাচ্ছে। পুরনো এ পুকুরটি জেলার ঐতিহ্য বহনের পাশাপাশি পরিবেশ রক্ষাসহ স্থানীয়রাও নানাভাবে উপকৃত হচ্ছে। তাই এ পুকুর রক্ষায় সবার এগিয়ে আসা উচিত।

এদিকে জেলা প্রশাসককে দেওয়া লিখিত আবেদনে স্থানীয় মেয়র উল্লেখ করেন, গত ২০১৪ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী ভূমি মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে দেওয়া নির্দেশনায় শহরের বিভিন্ন স্থানে জলাশয় রক্ষার কথাও বলেন। এ ব্যাপারে পৌরসভার মেয়র খালিদ হোসেন ইয়াদ বলেন, জনস্বার্থ বিবেচনায় ও পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে ওই জলাশয় ভরাট কার্যক্রম বন্ধ করা প্রয়োজন।


মন্তব্য