kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

সিভিল সার্জন গিয়ে দেখলেন ১০ ডাক্তারের আটজনই নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ফরিদপুরের সিভিল সার্জন অরুণ কান্তি বিশ্বাস আকস্মিক পরিদর্শনে গিয়ে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ১০ চিকিৎসকের মধ্যে আটজনকেই অনুপস্থিত পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মেহেদী হাসানও অনুপস্থিত ছিলেন।

এ ছাড়া একই সময় চারজন সেবিকার (নার্স) মধ্যে একজন এবং ২২ জন কর্মচারীর মধ্যে একজন ঝাড়ুদার ও একজন পিয়নকে উপস্থিত পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার সকাল সোয়া ৮টার দিকে পরিদর্শনে গিয়ে তিনি চিকিৎসক, সেবিকা ও কর্মচারীদের অনিয়মের বিষয়টি দেখতে পান। অথচ সরকারি নিয়ম অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত চিকিৎসক ও কর্মচারীদের থাকা বাধ্যতামূলক।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ভাঙ্গা উপজেলার প্রায় তিন লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য ৫০ শয্যার ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মাত্র ১০ জন চিকিৎসক কর্মরত রয়েছেন। অথচ ওই ১০ চিকিৎসকও ঠিকমতো স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত থাকেন না। এতে সাধারণ রোগীরা স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সিভিল সার্জন ডা. অরুণ কান্তি বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গতকাল সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ, ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা মেহেদী হাসান ও জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসকসহ আটজনকে উপস্থিত পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে জেনেছি, কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ তাঁর কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। ’ সিভিল সার্জন আরো বলেন, যেসব কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে উপস্থিত পাওয়া যায়নি হাজিরা খাতায় তাঁদের গতকাল অনুপস্থিত করা হয়েছে। তাঁদের কারণ দর্শানো (শোকজ) নোটিশ দেওয়া হবে।


মন্তব্য