kalerkantho


গার্মেন্টে বিক্ষোভ সংঘর্ষ কাঁচপুরে আহত ২০

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাঁচপুর শিল্পাঞ্চলের অনন্ত ডেনিম টেকনোলজি গার্মেন্টে গতকাল বৃহস্পতিবার শ্রমিকদের সঙ্গে মালিকপক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তাতে শ্রমিক-কর্মকর্তাসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় উত্তেজিত শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা চালালে পুলিশের বাধার মুখে তা আর সম্ভব হয়নি। পরে পরিস্থিতি বিবেচনায় কারখানা ছুটি ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

ওই গার্মেন্টের শ্রমিকরা জানান, বকেয়া পাওনা, বোনাস ও ছুটির দাবিতে গতকাল সকাল ১১টায় কারখানার প্রায় ছয় হাজার শ্রমিক বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় কারখানার ব্যবস্থাপক (অ্যাডমিন) সুশান্ত কুমার এক নারী শ্রমিককে থাপ্পড় দেন। তাতে শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে সুশান্ত কুমার, অ্যাকাউন্টস কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন, শ্রীলঙ্কার নাগরিক কারখানা কর্মকর্তা প্রদীপ চন্দ্র নাথসহ পাঁচজনকে মারধর করে। পরে স্থানীয় যুবলীগকর্মী বাবুল মিয়া, সুমন মিয়া ও অহিদ মিয়ার নেতৃত্বে শতাধিক সন্ত্রাসীর হামলায় কারখানার ১৫ শ্রমিকসহ ২০ জন আহত হন। এর মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের স্থানীয় ক্লিনিক ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে উত্তেজিত শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাঁদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতিষ্ঠানের কয়েকজন শ্রমিক জানান, তাঁদের কোনো ছুটি না দিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালানো হয়। কেউ অসুস্থ হলে ছুটি পাস না করে অসুস্থতার অজুহাতে চাকরিচ্যুত করা হয়। পবিত্র শবেবরাতের রাতেও কারখানা চালু রাখা হয়। কিছুদিন আগে ম্যানেজার সুশান্ত কুমার এক নারী শ্রমিককে সামান্য কারণে গরম আয়রন (ইস্ত্রি) দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছেঁকা দেন। তবে অনন্ত ডেনিম টেকনোলজি গার্মেন্টের জেনারেল ম্যানেজার (প্রশাসন) মেজর (অব.) সাখাওয়াত হোসেন জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়ে কারখানার ভেতরে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় কয়েকজন কর্মকর্তাকে মারধরও করেন তাঁরা। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কারখানা ছুটি ঘোষণা করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ শিল্প পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার হোসাইন মোহাম্মদ রায়হান বলেন, শ্রমিকদের সঙ্গে কর্মকর্তাদের কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে তাঁরা উত্তেজিত হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় দুই পক্ষে সংঘর্ষ বাধে। উত্তেজিত শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাঁদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেয়।


মন্তব্য