kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এমপি জালাল হত্যা মামলার চার বছর

শেষ হয়নি তদন্ত বিচার নিয়ে শঙ্কা

নেত্রকোনা প্রতিনিধি   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নেত্রকোনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মো. জালাল উদ্দিন তালুকদার হত্যার চার বছর আজ। কিন্তু দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত হত্যা মামলার তদন্ত শেষ করতে পারেনি পুলিশ।

এতে জালাল উদ্দিন তালুকদারের স্বজনদের মধ্যে বিচার না পাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তারা ক্ষোভ জানিয়ে বলছে, হত্যাকারীদের আড়াল করতেই এখনো মামলার তদন্ত শেষ করা হয়নি।

এ ব্যাপারে মরহুমের ছেলে শাহ কুতুব উদ্দিন তালুকদার রুয়েল বলেন, “আমার বাবার হত্যার ১০ দিন আগে তিনি একটি জিডি করেছিলেন। তাতে তিনি উল্লেখ করে গেছেন, ‘আমাকে ও আমার ছেলেকে হত্যা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। ’ হত্যা হয়েছে যে এটা প্রমাণের জন্য এই জিডিই যথেষ্ট। এখনো আমার বাবার হত্যা মামলার তদন্তের কোনো কূলকিনারা পেলাম না। আমার বাবা জালাল উদ্দিন তালুকদার একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তাঁর হত্যার বিচার না হলে এ দেশে মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁর সন্তানরা নিরাপদে থাকতে পারবে না। ” এ সময় তিনি বিচার চেয়ে সরকারের কাছে আবেদন জানান।

পুলিশ ও আদালত সূত্র জানায়, ২০১২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ভোরে মো. জালাল উদ্দিন তালুকদার নেত্রকোনার দুর্গাপুরের নিজ বাসায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। পরদিন জালাল উদ্দিনের ছেলে রুয়েল তাঁর সত্মা আয়েশা বেগম ও মাসুদ ইকবালকে (আয়েশা বেগমের আগের সংসারের ছেলে) আসামি করে দুর্গাপুর থানায় একটি মামলা করেন। পরে মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু সিআইডি বাদীকেই আসামি করে। আসামি এই আদেশের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন করেন। পরে সিআইডির তদন্ত সঠিক নয় বলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জুডিশিয়াল তদন্তের আদেশ দেন। পরে তদন্ত শুরুর আগেই মাসুদ ইকবাল সেশন জজ নেত্রকোনা বরাবর ক্রিমিনাল রিভিশন দায়ের করেন। আদালত রিভিশন বাতিল করেন এবং নতুন করে তদন্তের জন্য পিবিআইকে (পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশন) দায়িত্ব দেন।

এদিকে মো. জালাল উদ্দিন তালুকদারের চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে মরহুমের বাসভবনে সকালে কোরআন খতম, দুপুরে কাঙালিভোজ, বিকেলে হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল, বাদ আসর মরহুমের কবর জিয়ারত এবং বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল।


মন্তব্য