kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চকরিয়ায় সড়কে গাড়ি ভাঙচুর, চলাচলে বাধা

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



কক্সবাজার সরকারি কলেজের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে বাসের সহকারীর বাগিবতণ্ডার জের ধরে গাড়ি ভাঙচুর করেছে তার সহপাঠীরা। এ ঘটনায় পরে বাসচালক ও সহকারীরা সড়কে গাড়ি রেখে যানচলাচল বন্ধ করে দেয়।

পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এ বিষয়ে চকরিয়া থানার এসআই সুকান্ত চৌধুরী বলেন, শ্যামলী পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাসে করে কক্সবাজার সরকারি কলেজের এক ছাত্র চকরিয়া আসছিল। পথে বাসের সহকারীর সঙ্গে কথাকাটাকাটির পর ওই ছাত্র তার সহপাঠীদের ডুলাহাজারা এলাকায় বাসটি আটকাতে বলে। পরে ডুলাহাজারায় তারা কয়েকটি বাস ভাঙচুর করে। এর প্রতিবাদে চকরিয়া বাস টার্মিনাল এলাকায় বাস চলাচলে বাধা দেয় পরিবহন শ্রমিকরা। চকরিয়া থানার ওসি মো. জহিরুল ইসলাম খান বলেন, খবর পেয়ে থানা ও হাইওয়ে পুলিশ গিয়ে দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে ঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয় এবং মহাসড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সড়কে ডাকাতি : এদিকে কক্সবাজারের চকরিয়ায় দোকান বন্ধ করে রাতে বাড়ি ফেরার পথে একদল সশস্ত্র ডাকাতের কবলে পড়ে এক ওষুধ ব্যবসায়ী সর্বস্ব খুইয়েছেন। গত বুধবার রাতে বানিয়ারছড়া-বরইতলী-মগনামা সড়কের হাফালিয়া কাটার ২ নম্বর স্লুইস গেট এলাকার নির্জন স্থানে ওই ঘটনা ঘটে। ডাকাতের কবলে পড়া ব্যবসায়ীর নাম সঞ্জয় কুমার সুশীল। তিনি চকরিয়া পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের চিরিঙ্গা হিন্দুপাড়ার বাসিন্দা এবং বরইতলী ইউনিয়নের পহরচাঁদা কুতুব বাজারের চকোরী মেডিক্যাল হলের মালিক।

ব্যবসায়ী সঞ্জয়ের ছোট ভাই ডিবি পুলিশে কর্মরত সন্তু সুশীল জানান, রাত পৌনে ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করে তাঁর ভাই মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে পাঁচ-ছয়জন সশস্ত্র ডাকাত সড়কে ব্যারিকেড দিয়ে মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে। এ সময় মারধর করে তাঁর মোটরসাইকেল, তিনটি মোবাইল ফোনসেট, এক ভরি ওজনের সোনার চেইন ও প্রায় ১০ হাজার টাকা লুট করে নিয়ে যায় তারা। চকরিয়া থানার ওসি (তদন্ত) মো. কামরুল আজম বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের ধরার পাশাপাশি লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।


মন্তব্য