kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


র‌্যাবের বিশেষ অভিযান

সুন্দরবনে দস্যুদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধ, অস্ত্র উদ্ধার

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সুন্দরবনের বনদস্যু দমনে অভিযানের প্রথম দিনে র‌্যাবের সঙ্গে বনদস্যু বাহিনীর বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দস্যুদের ব্যবহৃত দুটি আগ্নেয়াস্ত্র, বিপুল পরিমাণ গোলাবারুদসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী উদ্ধার করা  হয়।

পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুধমুখী  এলাকায় গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ সময় র‌্যাব সদস্যরা দস্যুদের একটি আস্তানা ধ্বংস করে।

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ৮-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল ইফতেখারুল মাবুদ বলেন, বনদস্যুতা দমন ও সম্প্রতি অপহৃত জেলেদের উদ্ধারে বুধবার রাত থেকে শুরু হওয়া র‌্যাবের সপ্তাহব্যাপী বিশেষ অভিযানের প্রথম দিন বৃহস্পতিবার দুপুরে দুধমুখী এলাকায় অভিযান চলাকালে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে দস্যুরা গুলি ছোড়ে। এ সময় র‌্যাবও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। উভয়ের মধ্যে প্রায় আধা ঘণ্টাব্যাপী গোলাগুলির একপর্যায়ে দস্যুরা পিছু হটে। পরে ঘটনাস্থল তল্লাশি চালিয়ে দস্যুদের ব্যবহৃত দুটি আগ্নেয়াস্ত্র, বিপুল পরিমাণ গুলি ও খাবারজাতীয় নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি উদ্ধার করা হয়। এ সময় দস্যুদের একটি আস্তানা ধ্বংস করা হয়।

এদিকে বুধবার রাতে র‌্যাবের ৩০ সদস্যের একটি দল বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলারচর এলাকা থেকে এ বিশেষ অভিযানে নামে। তিনটি দলে ভাগ হয়ে একযোগে পূর্ব ও পশ্চিম সুন্দরবনের বনদস্যু অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে এ অভিযান চালানো হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত দুই সপ্তাহে গোটা সুন্দরবনের চারটি রেঞ্জজুড়ে বনদস্যু জাহাঙ্গীর, সাগর ও নেয়া বাহিনীর সদস্যরা সুন্দরবন ও বঙ্গোপসাগরে বেশ কয়েক দফা মুক্তিপণের দাবিতে কমপক্ষে ৭৫ জন জেলেকে অপহরণ করেছে। ওই বনদস্যু বাহিনীগুলো অপহৃত জেলেদের সুন্দরবনের গহীন অরণ্যে নিয়ে মুক্তিপণ আদায়ের জন্য আটকে রেখেছে। এ খবরের ভিত্তিতে সুন্দরবনের বনদস্যুতা দমন ও অপহৃত জেলেদের উদ্ধারে র‌্যাব সপ্তাহব্যাপী বিশেষ অভিযান শুরু করে।


মন্তব্য