kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মান্দায় ক্লিনিকে প্রসূতির মৃত্যু

ডাক্তারসহ ছয়জনের নামে মামলা, তদন্ত কমিটি

নওগাঁ প্রতিনিধি   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নওগাঁর মান্দায় অনুমোদনহীন একটি ক্লিনিকে প্রসবকালীন অস্ত্রোপচারের সময় নার্গিস আক্তার (২৪) নামের এক প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় মামলা হয়েছে। নার্গিসের ভাই আল মামুন বাবু বাদী হয়ে গত সোমবার রাতে মান্দা থানায় মামলাটি করেন।

মামলায় অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা সারোয়ার আলম স্বরূপ, ক্লিনিক মালিক আশরাফুল ইসলাম, সেবিকা সালমা সুলতানা লাকী, আয়া নাজনীন, চিকিৎসকের সহযোগী জামিউল হকসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো একজনকে আসামি করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনা তদন্তে নওগাঁ সিভিল সার্জন ডা. মোজাহার হোসেন তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন। তিনি জানান, মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফরিদ উজ জামানকে কমিটির প্রধান করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জুনিয়র কনসালট্যান্ট (গাইনি) জিন্নাত আরা ও মান্দা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা ফজলে রাব্বী। তিন দিনের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

তদন্ত কমিটির প্রধান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফরিদ উজ জামান জানান, ইতিমধ্যে তদন্তকাজ শুরু হয়েছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, অ্যানেসথেসিয়াজনিত ত্রুটি ও অপারেশন থিয়েটারের অব্যবস্থাপনার কারণেই প্রসূতির মৃত্যু হয়ে থাকতে পারে।

নার্গিসের ভাই আল মামুন বাবু জানান, চিকিৎসক ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণেই নার্গিসের মৃত্যু হয়েছে। নার্গিসের রেখে যাওয়া দুই দিনের শিশুটি বর্তমানে সুস্থ আছে। তাকে ফিডারের মাধ্যমে দুধ খাইয়ে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা চলছে। মান্দা থানার ওসি মোজাফফর হোসেন জানান, মামলার পর আটক লাকী ও নাজনীনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নওগাঁ জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।


মন্তব্য