kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ধর্ষণের সালিস করায় মাতবরদের নামে মামলা

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই ঘটনা সালিসে মীমাংসা করায় মাতবরদের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা হয়েছে।

মানিকগঞ্জের ঘিওর থানায় গত সোমবার রাতে এ দুটি মামলা হয়। গ্রেপ্তারের স্বার্থে পুলিশ আসামিদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেনি।

জানা গেছে, মানসিক ভারসাম্যহীন ১২-১৩ বছর বয়সী মেয়েটির মা বছর দুয়েক ধরে জর্দানপ্রবাসী। বাবা বাসের সহকারী। এ কারণে মেয়েটি থাকে মামার বাড়িতে। ঈদের কয়েক দিন আগে একই গ্রামের দুলাল নামের এক লোক তার ওপর নির্যাতন করে। বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায় মেয়েটির সঙ্গে থাকা আরো দুই শিশুর মাধ্যমে। মেয়ের মামা বিষয়টি জানার পর এ নিয়ে অভিযোগ করেন গ্রামের মুরুব্বি বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) ঘিওর উপজেলার চেয়ারম্যান মহব্বত আলী খানের কাছে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাও। গত শুক্রবার বিকেল ৪টার দিকে বিচার বসে গ্রামের ফজল খাঁর বাড়িতে। সালিসে উপস্থিত ছিলেন মহব্বত আলী খান, মো. লুৎফর রহমান, স মিল ব্যবসায়ী আলম শিকদার, সামছুল (সামছুু) ও ঘিওর ইউপি চেয়ারম্যান মো. অহিদুল ইসলাম টুটুল। বিচারে দুলালকে কান ধরে উঠবোস করাসহ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে গেলে সাংবাদিকদের কাছ থেকে ঘিওর থানার ওসি বিষয়টি জানতে পারেন। সোমবার রাতেই তিনি মেয়ে ও তার মামাকে থানায় ডেকে আনেন। ঘটনা শুনে মামাকে দিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা নেন। আসামি করা হয় অভিযুক্ত দুলালসহ ছয়জনকে। ঘিওর থানার ওসি মামলার কথা স্বীকার করেন। তবে দুলাল ছাড়া বাকি আসামিদের নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, ‘আসামিদের নাম প্রকাশ হয়ে গেলে তাদের গ্রেপ্তার করতে সমস্যা হবে। ’


মন্তব্য