kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্কুল ছাত্র মোরসালিন হত্যা মামলা

নারায়ণগঞ্জে ফের পেছাল রিভিউ পিটিশনের শুনানি

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুল ছাত্র মোরসালিন হত্যা মামলার চার্জশিটের বিরুদ্ধে বাদীর দেওয়া রিভিউ পিটিশনের শুনানি আবারও পেছানো হয়েছে। গতকাল নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আশেক ইমামের আদালতে বাদীপক্ষের আইনজীবী পরবর্তী সময় শুনানির জন্য সময় আবেদন করেন।

পরে আদালত আবেদন মঞ্জুর করে শুনানির জন্য আগামী ১৩ নভেম্বর পরবর্তী তারিখ ধার্য করেন। এ সময় আদালতে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দীন ও তাঁর তিন ছেলে ফয়সাল, সাদরিল এবং সানবিরসহ অন্য আসামিরা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান মাসুম বলেন, বাদীপক্ষের আইনজীবী সময় আবেদন করায় আদালত তা মঞ্জুর করে পরবর্তী তারিখ ধার্য করেছেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, গত এপ্রিলে এই মামলায় আদালতে চার্জশিট দেন তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির এএসপি এহসানউদ্দিন। পরে ৯ জুন চার্জশিট থেকে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য গিয়াসউদ্দীন ও তাঁর তিন ছেলে ফয়সাল, সাদরিল ও সানবির এবং ঠিকাদার আকরামসহ আট আসামির নাম বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট পেশ করা হয়। ওই চার্জশিটের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন করেন মামলার বাদী নিহত মোরছালিনের বাবা কেন্দ্রীয় ওলামা লীগ নেতা আমির হোসেন ভাণ্ডারী।

নারাজিতে বাদী উল্লেখ করেন, মামলার এজাহারভুক্ত আসামি গিয়াসউদ্দীন ও তাঁর তিন ছেলে ফয়সাল, সাদরিল, সানবির এবং ঠিকাদার আকরামসহ আটজন আসামির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামিদের দ্বারা প্ররোচিত হয়ে অভিযোগপত্রে তাঁদের নাম অন্তর্ভুক্ত করেননি। চার্জশিটে যে ৪২ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে এর মধ্যে ২০ জনই আসামিপক্ষের লোক বলে দাবি করেন মামলার বাদী।

উল্লেখ্য, স্কুল ছাত্র দেলোয়ার হোসেন মোরছালিনের লাশ ২০১৪ সালের ২৫ আগস্ট রাতে সিদ্ধিরগঞ্জে গিয়াসউদ্দিন ইসলামিক মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মোরছালিনের বাবা কেন্দ্রীয় ওলামা লীগ নেতা আমির হোসেন ভাণ্ডারী ওই দিন রাতেই গিয়াসউদ্দিন ও তাঁর তিন ছেলে এবং ঠিকাদার আকরামসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন। মোরছালিন শহরের মাসদাইর এলাকায় অবস্থিত এরিবস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা

নারায়ণগঞ্জে দীর্ঘদিন পর আইনশৃঙ্খলা কমিটির প্রাণবন্ত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মাসিক সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নারায়ণগঞ্জের চারজন সংসদ সদস্যসহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, চার উপজেলার চেয়ারম্যান ও জেলায় কর্মরত প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। তবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র বা তাঁর কোনো প্রতিনিধি সভায় উপস্থিত ছিলেন না।

সভায় উপদেষ্টার বক্তব্যে সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান সদ্য বিদায় নেওয়া জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান মিঞা ও পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিনের কাজের প্রশংসা করেন। সেই সঙ্গে নতুন জেলা প্রশাসক দায়িত্ব নেওয়ার পর পরই রাস্তায় নেমে ঝাড়ু হাতে শহরকে পরিচ্ছন্ন করার বিষয়ে প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, এমন আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করলে এক সময় এখান থেকে সব ধরনের জঞ্জাল দূর হয়ে পরিচ্ছন্ন নারায়ণগঞ্জ শহর গড়ে উঠবে।

সেলিম ওসমানের বক্তব্যের রেশ টেনে সভাপতির বক্তব্যে নতুন জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে এসে ঝাড়ু হাতে নিয়েছি। যাওয়ার সময় নারায়ণগঞ্জকে ফুলের বাগান বানিয়ে দিয়ে যেতে চাই। আমি আপনাদের কথা দিচ্ছি, নারায়ণগঞ্জে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন একত্রে কাজ করবে। এ ক্ষেত্রে আপনাদের সবার সহযোগিতা চাই। আপনাদের দিকনির্দেশনা আমাদের কাজ সহজ করে তুলবে। আমরা যেন সরকারের দেওয়া দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করে যেতে পারি। ’


মন্তব্য