kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


তিন জেলায় মিলল শিশুসহ চারজনের লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বরিশাল মহানগরে গতকাল সোমবার এক শিশু ও এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই দিন গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ ও ময়মনসিংহের ভালুকায় দুই যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

কালের কণ্ঠ’র আঞ্চলিক অফিস ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

বরিশাল : গতকাল সকালে মহানগরের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের নবগ্রাম রোডের খান সড়কসংলগ্ন ডোবা থেকে তন্নীর (১০) মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। সে বরগুনা জেলার টুনু মিয়ার মেয়ে ও নগরের খান সড়কের ফয়জুল উলুম ইসলামিয়া মাদ্রাসার ছাত্রী। এর আগে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে নগরের রূপাতলী বটতলা এলাকার জলপাইতলা রাস্তার পাশ থেকে অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের (২৮) মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। যুবকের পরনে আকাশি রঙের চেক শার্ট ও চেক লুঙ্গি রয়েছে। তাঁর শরীরের ওপর একটি রক্তাক্ত সাদা চেক শার্ট পাওয়া গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, টুনু মিয়া তাঁর স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে নবগ্রামে রোডের যুবক হাউজিংসংলগ্ন খালেক খানের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। রবিবার রাত ৮টার পর নিখোঁজ হয় তন্নী। পরিবারের সদস্যরা আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবন্ধবের বাড়িতে খোঁজ করেও তাকে পায়নি। সকালে ওই ডোবায় ভাসমান অবস্থায় তন্নীর মৃতদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি শাহ মো. আওলাদ হোসেন বলেন, যুবককে যে হত্যা করা হয়েছে সেটা তাঁর শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখে বলা যায়। তবে তন্নী হত্যার কারণ ময়নাতদন্ত ছাড়া বলা যাবে না। এসব ঘটনায় থানায় একটি হত্যা ও একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গাইবান্ধা : গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কোচাশহর ইউনিয়নের বনগ্রামের ওয়াজেদ আলী ওরফে ওয়াহেদের বাড়ির সেপটিক ট্যাংক থেকে গতকাল দুপুরে খলিলুর রহমানের (২৬) গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। খলিলুর ওই ইউনিয়নের শক্তিপুর নামাপাড়া গ্রামের অছিমুদ্দিন কবিরাজের ছেলে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে নিখোঁজ ছিলেন তিনি। এ হত্যায় জড়িত সন্দেহে ওয়াজেদ আলীর স্ত্রী হাওয়া বেগমকে (৪৫) আটক করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসী জানায়, ওয়াজেদ আলী ওরফে ওয়াহেদের মেয়ে কোচাশহর শিল্পনগরী কলেজের ইন্টারমিডিয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের কলা বিভাগের ছাত্রী আছিয়া আকতার সীমার সঙ্গে খলিলুর রহমানের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানাজানি হলে সীমার বাবা তাকে শাসন করেন। পরে ১৪ সেপ্টেম্বর সীমা বিষপানে আত্মহত্যা করে। এর জেরে খলিলুরকে হত্যা করে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে লাশ গুমের চেষ্টা করা হয় বলে পুলিশের ধারণা। লাশ উদ্ধারের পর বিক্ষুব্ধ স্বজন ও এলাকাবাসী সন্দেহভাজন ওয়াজেদ আলীর বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। পরে ফায়ার সার্ভিস গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনলেও ঘরবাড়িসহ মালপত্র রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

গোবিন্দগঞ্জ থানার ওসি সুব্রত সরকার জানান, খলিলুরের গলা কাটাসহ শরীরে জখমের চিহ্ন রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য গাইবান্ধা আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

ভালুকা (ময়মনসিংহ) : ভালুকা উপজেলার নিশিন্দা গ্রামের একটি ধানক্ষেত থেকে গতকাল পুলিশ উদ্ধার করে রিকশাচালক পারভেজের (২৬) লাশ। তিনি পাশের ভরাডোবা গ্রামের মফিজুল ইসলামের ছেলে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত রবিবার সকালে খাবার খেয়ে রিকশা নিয়ে বের হন পারভেজ। দুপুরে রিকশার মালিক পাশের মেদুয়ারী গ্রামের আবদুর রশিদের কাছে এক বেলার রিকশার জমা ১০০ টাকা দিয়ে আসেন। এর পর থেকে তাঁর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। গতকাল সকালে স্থানীয় এক ব্যক্তি ঘাস কাটতে গিয়ে ধানক্ষেতে পারভেজের লাশ দেখতে পায়।

ভালুকা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার ফাইজুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ পাওয়ার পর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য