kalerkantho


যৌতুক যন্ত্রণা

ডিমলায় নারী প্রশিক্ষকের আত্মহনন

নীলফামারী প্রতিনিধি   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা পরিষদের ই-সেন্টারের প্রশিক্ষক জয়নাব বানুর (২৮) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সকালে জয়নাব বাবার বাড়িতে ঘরের বৈদ্যুতিক পাখার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে জানিয়েছে তাঁর পরিবার।

জয়নাব বানু ডিমলা সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট রাজবাড়ীপাড়া গ্রামের জামিয়ার রহমানের মেয়ে। ২০১০ সাল থেকে উপজেলা ই-সেন্টারের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি।

জয়নাবের পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, ২০১৪ সালের নভেম্বরে একই উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নের চাপানি গ্রামের ছাদেক হোসেনের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে জয়নাবের বিয়ে হয়। তখন যৌতুকের ১০ লাখ টাকার মধ্যে ছয় লাখ টাকা কনেপক্ষ বরপক্ষকে দেয়। বাকি টাকার জন্য চাপ দিচ্ছিল মোস্তাফিজুর ও তাঁর পরিবারের লোকজন। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে দ্বন্দ্বের জেরে জয়নাব বাবার বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। গত ঈদুল আজহায় স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁর কোনো খোঁজখবর নেয়নি। গত শুক্রবার বিকেলে শ্বশুর ছাদেক হোসেন জয়নাবকে দেখতে এলে তাঁদের মধ্যে বচসা হয়।


মন্তব্য