kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফতুল্লায় চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জ সদরের ফতুল্লায় চাঁদার দাবিতে আটজন ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকচালককে মারধরের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন মালিক ও শ্রমিকরা। শনিবার দুপুরে ফতুল্লার পাগলা-জালকুড়ি সড়কের চিতাশাল এলাকায় এ বিক্ষোভ করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড, পুরনো সড়কসহ গ্রামের বিভিন্ন সড়কে প্রায় কয়েক হাজার ইজিবাইক ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা (ইজিবাইক) চলাচল করছে। এসব গাড়ির চালকদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে জিম্মি করে ক্ষমতাসীন দলের এক নেতা দীর্ঘদিন ধরে তাদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে আসছেন। এত দিন ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে পারেনি। কেউ প্রতিবাদ করলে তাদের ইজিবাইক ও রিকশা চুরি হয়ে যেত। এ অবস্থায় থানায় গিয়ে কেউ একটি লিখিত অভিযোগও করতে পারেনি।

এ ব্যাপারে ইজিবাইকচালক লতিফ মিয়া জানান, পাগলা থেকে জালকুড়ি সড়কে ৩০০ ইজিবাইক ও ১৫০ ব্যাটারিচালিত রিকশা রয়েছে। এর জন্য সালাউদ্দিন সালুকে সভাপতি ও মজিবুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক করে মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে দেয় সরকার দলীয় প্রভাবশালী এক নেতা যিনি ফতুল্লায় কয়েক হাজার ইজিবাইকচালককে জিম্মি করে রেখেছেন। ১৯ হাজার টাকায় প্রতি গাড়ির জন্য তাঁদের কাছ থেকে একটি প্লেট কিনতে হয়। তাঁদের প্লেট ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারে না। তিনি আরো জানান, সংগঠনটি ইজিবাইক ও রিকশা আটক করে প্রতিদিন ৩০ টাকা করে চাঁদা নেয়। শনিবার সকালে সালাউদ্দিন সালু ও মজিবুর রহমান আটটি ইজিবাইক পাগলা চিতাশাল এলাকায় আটক করে প্লেটের জন্য মোটা অঙ্কের টাকা চাঁদা দাবি করে। ওই টাকা না দেওয়ায় ইজিবাইকচালক নাহিদ, মামুন, কামাল, জনি, সুজন, মিলন ও কাদিরকে মারধর করে। প্রতিবাদ করলে লতিফকেও মারধর করা হয়। এ ঘটনায় বিক্ষোভ করা হয়। ফতুল্লা ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা (ইজিবাইক) মালিক শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুল হক বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে চালকদের শান্ত করে এসেছি। বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা চলছে। ’ ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, থানায় অভিযোগ করা হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য