kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আলাদা সংঘর্ষ

আজমিরীগঞ্জ কাশিয়ানীতে আহত ৫৫

হবিগঞ্জ ও গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার শিবপাশা গ্রামে ঝগড়া সালিসে মীমাংসার পর সংঘর্ষে ৪০ জন আহত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটে।

আহত ও পুলিশ সূত্র জানায়, শুক্রবার বিকেলে শিবপাশা গ্রামের তাহের মিয়ার ছেলে আব্দুল হালিম ও আবুল হাশেমের ছেলে মুর্শেদ মিয়ার মধ্যে ফুটবল খেলা নিয়ে কথাকাটাকাটি হয়। সন্ধ্যায় এ নিয়ে দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে এ নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজনদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় লোকজন এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

গতকাল সকালে উভয় পক্ষের বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য সালিস বসে। বৈঠকে ইউপি চেয়ারম্যান আলী আমজাদ, আওয়ামী লীগ নেতা নলিউর রহমান তালুকদারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। সালিসে এ বিষয়টি নিষ্পত্তি করে দিয়ে মুরব্বিরা বাড়িতে ফেরার পথে তাহের মিয়ার লোকজন আবুল হাশেম মিয়ার একটি মুরগির ফার্ম ভাঙচুর করে। পরে এ নিয়ে উভয় পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে ৩০ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ছয়জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি ওয়াহিদুর রহমান জানান, পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

এদিকে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার নিজামকান্দি গ্রামে গতকাল শনিবার দুপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৯ জনকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে টর্চ দিয়ে মাছ ধরছিল আরিফ শেখ। এ সময় টর্চের আলো দাউদ মুন্সীর ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে। এর জের ধরে শনিবার দুপুরে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে উভয় পক্ষের নারীসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়।

কাশিয়ানী থানার রামদিয়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই হাদি আব্দুল্লাহ বলেন, ‘পরিস্থিতি শান্ত। কোনো পক্ষ অভিযোগ করেনি। ’


মন্তব্য