kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে কেরানীগঞ্জে ব্যবসায়ী নিহত

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



কেরানীগঞ্জে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে এক পোশাক কারখানা ব্যবসায়ী নিহত ও এক যুবক আহত হয়েছেন। গত শুক্রবার রাতে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানাধীন পারগেণ্ডারিয়া ইসলামনগর হাজি ওসমান গনি রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শহিদুলকে গতকাল শনিবার সকালে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত ব্যবসায়ী ইমরান হোসেন (২৫) হাজি ওসমান গনি রোড এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে। পুলিশ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে ইমরানের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। আহত আরিফ (২৬) স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ইমরানের বাবা মোহাম্মদ হোসেন জানান, ইমরান হাজি ওসমান গনি রোড এলাকায় নিজ বাড়ির নিচে পোশাক কারখানা গড়ে ব্যবসা করে আসছিলেন। শুক্রবার রাতে ইমরান ও তাঁর বন্ধু হৃদয় আখ খাচ্ছিলেন। তখন তাঁদের উল্টোদিক থেকে ধারালো ছুরিধারী এক যুবককে ‘ছিনতাইকারী’, ‘ছিনতাইকারী’ বলে ধাওয়া দিয়ে চেঁচামেচি করে আসছিল দুটি ছেলে। ইমরানের কাছে আসতেই ওই যুবককে থামতে বলা হয়। যুবকটি হাতে থাকা ছুরি দিয়ে ইমরানের পেটের বাঁ পাশে একটি আঘাত করে দৌড়ে পালিয়ে যায়। ইমরান মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। মোহাম্মদ হোসেন বলেন, ‘তখন হৃদয় ও ধাওয়াকারী দুই ছেলের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ও আমরা এগিয়ে গিয়ে ইমরানকে দ্রুত মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করি। অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে নিয়ে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে কিছুক্ষণ পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। ’

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান খান বলেন, ওই ঘটনায় শনিবার ভোরে ইমরানের বাবা মোহাম্মদ হোসেন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন। পরে হৃদয়ের বর্ণনামতে নিজস্ব সোর্স ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে শহিদুলকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত ছুরি, রক্তমাখা প্যান্ট ও টি-শার্ট উদ্ধার করা হয়েছে।

থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তার শহিদুলের সঙ্গে বৃহস্পতিবার রাতে জোজো নামে এক যুবকের বাগিবতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে শহিদুল তাঁকে মারধর করে পালিয়ে যায়। পরে জোজোর পক্ষ নিয়ে আরিফ নামে আরেক যুবক শুক্রবার রাতে শহিদুলকে আটক করেন। শহিদুল আরিফের পিঠে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যাওয়ার সময় ইমরান ও হৃদয় তার গতিরোধের চেষ্টা করেন। তখন ইমরানের পেটে ছুরিকাঘাত করেন শহিদুল। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

কেরানীগঞ্জে আলাদা সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

কেরানীগঞ্জ উপজেলায় গতকাল শনিবার সকালে আলাদা সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিশুসহ তিনজন নিহত হয়েছে। এসব ঘটনায় কেরানীগঞ্জ মডেল থানা ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় দুটি মামলা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার শাক্তা এলাকায় ক্রাউন মেলামাইন কারখানার সামনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি মাইক্রোবাস খাদে পড়ে গেলে ঘটনাস্থলেই শাওন (৬) ও শাহিন (৪) নামের দুই শিশু মারা যায়। একই ঘটনায় আহত মাইক্রোবাসের চার আরোহীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের বাড়ি নবাবগঞ্জ উপজেলার মদনমোহন গ্রামে। অন্যদিকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে গাড়ির ধাক্কায় অজ্ঞাতপরিচয় এক নারী নিহত হয়েছেন। তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।


মন্তব্য