kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চুয়াডাঙ্গায় সেপটিক ট্যাংকে ছাত্রের লাশ

টঙ্গীতে দিনমজুর খুন, নারায়ণগঞ্জে দুই মরদেহ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গায় সেপটিক ট্যাংকে ছাত্রের লাশ

মাহফুজ আলম সজীব

চুয়াডাঙ্গায় সেপটিক ট্যাংকে অপহৃত স্কুল ছাত্রের গলিত লাশ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

অন্যদিকে গাজীপুরের টঙ্গীতে খুন হয়েছেন এক দিনমজুর। নারায়ণগঞ্জে দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা : দামুড়হুদা উপজেলা থেকে অপহরণের ৩২ দিন পর সেপটিক ট্যাংকে পাওয়া গেছে মাহফুজ আলম সজীব নামের এক স্কুল ছাত্রের গলিত লাশ। গতকাল বুধবার সকালে জেলা শহরের সিঅ্যান্ডবি পাড়ার একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে লাশটি উদ্ধার করে র‌্যাব। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ির মালিক কোরবান আলী, তাঁর স্ত্রী জুলেখা খাতুন ও ছেলে মতিয়ার রহমানকে আটক করেছে পুলিশ। সজীব দামুড়হুদা উপজেলার ফেরিঘাট রোডের মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে। সে চুয়াডাঙ্গা ভিজে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ত। এ ব্যাপারে ওই ছাত্রের চাচা রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সজীবকে ফিরে পাওয়ার জন্য আমরা সব রকম চেষ্টাই করেছি। বিনিময়ে মোটা অঙ্কের টাকা দিতেও আমরা প্রস্তুত ছিলাম। কিন্তু অপহরণকারীরা সজীবকে বাঁচতে দিল না। ’ পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সজীব সাইকেল নিয়ে ২৯ জুলাই রাতে দামুড়হুদা উপজেলা চত্বরে আয়োজিত বৃক্ষমেলায় যায়। সেখান থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। মুক্তিপণ হিসেবে তার পরিবারের কাছে ২০ লাখ টাকা দাবি করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল সকালে র‌্যাব-৬ এর ঝিনাইদহ ক্যাম্পের সদস্যরা ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতায় জেলা শহরের সিঅ্যান্ডবি পাড়ার কোরবান আলীর বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে সজীবের গলিত লাশ উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে চুয়াডাঙ্গা থানার ওসি তোজাম্মেল হক জানান, মুক্তিপণের জন্যই সজীবকে অপহরণ করা হয়েছিল বলে প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা গেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অপহরণকারীরা তাকে হত্যা করে সেপটিক ট্যাংকে লাশ ফেলে রাখে। ওসি আরো জানান, অপহরণ ও হত্যার ঘটনার মূল হোতাকে তারা চিহ্নিত করতে পেরেছেন। তবে সে (মূল হোতা) পলাতক রয়েছে। তাকে ধরার চেষ্টা চলছে।

টঙ্গী (গাজীপুর) : দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে হুমায়ুন কবীর নামের এক দিনমজুর খুন হয়েছেন। গত মঙ্গলবার রাতে টঙ্গীর দক্ষিণ আউচপাড়া এলাকার স্কুইব রোডের পাশে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে হুমায়ুনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ব্যাপারে থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের বন্দর ও ফতুল্লা থেকে দুটি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার বিকেলে বন্দরের হালুয়াপাড়া খাল থেকে ভাসমান অবস্থায় অর্ধগলিত একটি এবং ফতুল্লার উত্তর সেহাচর তক্করমাঠ এলাকার সিদ্দিক মিয়ার বাড়ি থেকে মমিনুল ইসলাম (১৮) নামের এক কিশোরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। মমিনুল ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া দিনমজুর সালাম মিয়ার ছেলে। কামতাল পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আহসানউল্লাহ চৌধুরী জানান, বুধবার বিকেলে বন্দর উপজেলা ধামগড় ইউপির হালুয়াপাড়া এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের খালে একটি অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির লাশ ভাসতে দেখে এলাকাবাসী। খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায় পুলিশ। নিহত ব্যক্তির বয়স আনুমানিক ৫০ বৎসর। তাঁর টাক মাথা ও পরনে সাদা লুঙ্গি ছিল।

অন্যদিকে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন জানান, মমিনুল ইসলাম পেশায় রিকশাচালক ছিলেন। পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি।


মন্তব্য