kalerkantho

মধু আহরণ

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



সুন্দরবনে গতকাল শুক্রবার থেকে মধু আহরণ শুরু হয়েছে। বনসংলগ্ন বিভিন্ন গ্রামের মৌয়ালরা মধু আহরণের জন্য এখন বনে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। এ ব্যাপারে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম জানান, সরকারের নির্ধারিত রাজস্ব জমা দেওয়ার পর বন বিভাগ থেকে পাস (অনুমতি) নিয়ে মৌয়ালরা সুন্দরবনে মধু আহরণ করছে। ১ এপ্রিল (গতকাল) থেকে মৌয়ালরা কয়েকটি গ্রুপে ভাগ হয়ে সুন্দরবনে ঢুকতে শুরু করেছে। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত মৌয়ালরা সুন্দরবন থেকে মধু আহরণ করতে পারবে। তিনি আরো জানান, প্রতি কুইন্টাল মধুর রাজস্ব ৭৫০ টাকা এবং প্রতি কুইন্টাল মোমের রাজস্ব এক হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

নির্ধারিত রাজস্ব জমা দেওয়ার পর বন বিভাগ থেকে পাস নিয়ে মৌয়ালরা বনে মধু আহরণ করতে যায়। এ বছর সুন্দরবন পূর্ব বিভাগ থেকে ৯১০ কুইন্টাল মধু ও ২৩০ কুইন্টাল মোম সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছর সুন্দরবন পূর্ব বিভাগ থেকে ৭০০ কুইন্টাল মধু ও ১৮০ কুইন্টাল মোম সংগ্রহ করা হয়। এ ব্যাপারে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেস্ট্রি অ্যান্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিনের অধ্যাপক ড. মাহমুদ হোসেন বলেন, ধোঁয়া দিয়ে চাক থেকে মৌমাছি সরিয়ে দিয়ে মধু আহরণ করতে হয়। অনেক সময় মৌয়ালদের ফেলে রাখা মশাল থেকে সুন্দরবনে আগুনের ঘটনা ঘটে। ওই আগুনে সুন্দরবনে জীববৈচিত্র্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ জন্য সুন্দরবনে যারা মধু আহরণ করতে যায় তাদের প্রশিক্ষণ থাকা প্রয়োজন বলে তিনি মনে করেন।


মন্তব্য