kalerkantho


শরীয়তপুরে তিন বাড়িতে ডাকাতি

ডাকাতের হামলায় আহত ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার ও শরীয়তপুর প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



শরীয়তপুরের নড়িয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে তিনটি বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তিনটি বাড়ি থেকে লক্ষাধিক টাকাসহ প্রায় পাঁচ ভরি স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায় তারা। এ সময় দুজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁদের ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তবে এটাকে চুরির ঘটনা বলে দাবি করেছে পুলিশ।

ডাকাতির শিকার পরিবারগুলো জানায়, বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে প্রথমে উপজেলার মোক্তারেরচর ইউনিয়নের ঈশ্বরকাঠি গ্রামের মীর হোসেন মাতব্বরের ঘরের টিন কেটে ডাকাতরা ঘরে ঢোকে। পরে সবাইকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হাত-পা বেঁধে স্বর্ণালংকার ও টাকা লুটে নেয়। একইভাবে রাত ৩টার দিকে একই গ্রামের আনোয়ার বেপারীর বাড়িতে ঢোকে তারা। সেখানে তাদের বাধা দিলে আনোয়ার বেপারী ও তাঁর ছেলে সেলিম বেপারীকে কুপিয়ে জখম করে ডাকাতরা। পরে পাশের গ্রামের মাওলানা জাকির হোসেন মাতব্বরের ঘরে ঢুকে মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ২৫ হাজার টাকা ও স্বর্ণালংকার লুটে নেয় ডাকাতরা। খবর পেয়ে পুলিশ গতকাল শুক্রবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আহত দুজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

নড়িয়া থানার ওসি ইকরাম আলী মিয়া বলেন, তিনটি বাড়ি থেকে কিছু মালামাল নিয়ে গেছে। পুলিশ বাড়িগুলো পরিদর্শন করেছে। আনোয়ার বেপারীর বাড়ি থেকে ফেলে যাওয়া একটি ছুরি, জুতা ও ছাতা উদ্ধার করা হয়েছে। আলামত দেখে এটাকে চুরির ঘটনা বলে মনে হয়েছে। চোরদের আঘাতে দুজন আহত হয়েছেন।

মৌলভীবাজারে ১১ লাখ টাকার মালামাল লুট মৌলভীবাজার শহরতলির পূর্ব হিলালপুর গ্রামে বৃহস্পতিবার রাতে এক ঠিকাদারের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতরা এ সময় স্বর্ণালংকার, টাকা, জামাকাপড়সহ গ্রায় ১১ লাখ টাকার মাল লুটে নেয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে ছয়জন ডাকাত দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ঠিকাদার সৈয়দ মোহাম্মদ মুহিবের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকে। এ সময় মুহিব বাধা দিতে গেলে তাঁর পরনের গেঞ্জি খুলে নিয়ে হাত বেঁধে ফেলে। এরপর গামছা দিয়ে পা বেঁধে স্টিলের আলমারি খুলে ২২ ভরি স্বর্ণালংকার, ৭০ হাজার টাকা, তিনটি মোবাইল ফোনসেট, জামাকাপড় ইত্যাদি লুট করে একটি মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কারযোগে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে গতকাল শুক্রবার ভোরে মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহজালাল, সহকারী পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম, মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি আব্দুছ ছালেক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।


মন্তব্য