kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


সরাইলে আ. লীগ ও এমপির বিরোধ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



সরাইলে আ. লীগ ও এমপির বিরোধ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়েছে। আওয়ামী লীগের অভিযোগ, জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের সংসদ সদস্য জিয়াউল হক মৃধা দলীয় প্রার্থীর হয়ে ভোট চাচ্ছেন। আর জিয়াউল হকের অভিযোগ, সকাল ১০টার মধ্যেই ভোট সম্পন্ন করার প্রচারণা চালাচ্ছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। আগামী ২৩ এপ্রিল সরাইলের ১১টি উপজেলায় ভোট হওয়ার কথা।

গত ২১ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ইউপি নির্বাচন হয়। ভোটের চার দিন পর সংবাদ সম্মেলনে সংসদ  সদস্য (সরাইল-আশুগঞ্জ) জিয়াউল হক বলেন, ‘আশুগঞ্জের নির্বাচনে মাথায় হলুদ ফিতা বাঁধা একদল লোক কেন্দ্র দখল করে ও ব্যালটে সিল মারে। ’ আওয়ামী লীগের দিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘সরাইলের নির্বাচনে বহিরাগত দখলদার গুণ্ডাবাহিনীর বিরুদ্ধে গণ-প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে। এখানে জবরদস্তি সহ্য করা হবে না। ’

তাঁর এ বক্তব্যের সমালোচনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার। এক বিবৃতিতে তিনি অভিযোগ করেন, ‘এ ঘটনার মধ্য দিয়ে এমপি নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন। ’ এ ছাড়া গতকাল কালের কণ্ঠকে মামুন সরকার বলেন, ‘শুধু সংবাদ সম্মেলনই নয়, এলাকায় গিয়ে দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে তিনি ভোট চাইছেন। নিয়ম অনুযায়ী, নির্বাচনের সময় তিনি তো এলাকার কোনো ধরনের কর্মসূচিতেই অংশ নিতে পারবেন না। ’ মামুন সরকার জানান, দল থেকে জিয়াউল হকের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে আচরণবিধি লঙ্ঘণের অভিযোগ তোলা হবে। এদিকে গতকাল পাল্টা বিবৃতিতে জিয়াউল হক বলেন, ‘ভোটের দিন সকাল ১০টার মধ্যে ভোট নেওয়া শেষ হবে বলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালাচ্ছে। ’

জিয়াউল হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সারা দেশের যে অবস্থা, তাতে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে আমি সন্দিহান। এর পরও আশা করি, বিরোধীদলের একজন সংসদ সদস্য সরাইলে থাকায় সরকার এখানে সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করবে। ’


মন্তব্য