kalerkantho


লক্ষ্মীপুরে দুই বোনকে গণধর্ষণ, মামলা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে দুই কিশোরী বোনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন চালানোর অভিযোগে থানায় দুটি মামলা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার তাদের মা বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

এদিকে গতকাল বিকেলে দুই বোনের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। পুলিশ সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আজ শনিবার কমলনগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তারা জবানবন্দি দেবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সূত্রমতে, উপজেলার তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নে গত মঙ্গলবার রাতে একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে দুই বোন গণধর্ষণের শিকার হন। এ ঘটনার পর স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুর রহিম দুলাল মাঝি বিষয়টি মীমাংসা করার আশ্বাস দিয়ে মামলা করতে দেয়নি বলে পরিবারের অভিযোগ। মামলার আসামিরা হলো উপজেলার তোরাবগঞ্জ ইউনিয়নের বাসিন্দা মো. খোকন, একই এলাকার মো. সিরাজ, মো. ইউছুফ, আবদুল করিম ও অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি। ঘটনার পর থেকে তারা গা-ঢাকা দিয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্তদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে একই এলাকার খোকন ওই বাড়ি এসে বড় বোনকে বাইরে আসতে বলে। এ সময় সে ছোট বোনকে সঙ্গে নিয়ে উঠানে এলে চার-পাঁচজন মিলে তাঁদের মুখ বেঁধে পাশের একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে তাঁদের ওপর নির্যাতন চালানো হয়।

দুই বোনের মা বলেন, ‘রাতে খোকন, সিরাজসহ কয়েকজন আমার দুই মেয়েকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে নির্যাতন করে। সকালে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পাশের বাগান থেকে তাদের অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করেছি। বিষয়টি স্থানীয় মেম্বার আবদুর রহিম দুলাল মাঝিকে জানালে তিনি মীমাংসা করে দেওয়ার আশ্বাস দেন। তিনি আমাদের মামলা করতে দেননি। ’

স্থানীয় লোকজন জানায়, ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা মেম্বার আবদুর রহিম দুলাল মাঝির স্বজন। যে কারণে তিনি মীমাংসার নামে সময়ক্ষেপণ করে ধর্ষণের আলামত নষ্ট করার চেষ্টা করেছেন। তবে ইউপি মেম্বার আবদুর রহিম দুলাল মাঝি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি তাদের ক্ষতি নয় উপকার করার চেষ্টা করেছি। কিন্তু লোকজন মিথ্যা কথা বলে বেড়াচ্ছে। ’

এ-সংক্রান্ত একটি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল বলেন, এ ঘটনায় শনিবার কমলনগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ক্ষতিগ্রস্তরা জবানবন্দি দেবে।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার আনোয়ার হোসেন বলেন, ডাক্তারি পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে কমলনগর থানার ওসি কবির আহাম্মদ বলেন, এ ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


মন্তব্য