kalerkantho


ভোট পড়েছে ৮০ শতাংশের বেশি

মো. মাসুদ খান, মুন্সীগঞ্জ   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



ভোট পড়েছে ৮০ শতাংশের বেশি

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরের কুকুটিয়া উত্তরপাড়া গ্রামের ৭২ বছরের জামিলা বেগম ভোটকেন্দ্রের বারান্দায় বসা। বয়স বেশি হওয়ায় তাঁকে আগে ভোট দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হবে। তাই এখানে বসিয়ে রাখা হয়েছে। পাশেই বসা একই গ্রামের বৃদ্ধ মনোয়ারা বেগম। আর লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন ৭৫ বছরের আব্দুল হামিদ। তাঁদের ইঙ্গিত করে কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার কৃষি ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, বয়স্ক মানুষেরও ভোট দেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ আছে।

তবে সামান্য আগে একটি ঘটনায় ভোটাররা শঙ্কিত হয়ে পড়েছিল। একটি বুথের ফ্লোর ধসে সামান্য আহত সুরুদিয়া গ্রামের মুক্তা বেগমকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে অবশ্য বুথটি সরিয়ে নেওয়া হয়। এদিকে পাশের আটপাড়া ইউনিয়নের কল্লীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটারের সরব উপস্থিতি দেখা যায়। সরু রাস্তা ও কেন্দ্রের পাশে খালি জায়গা না থাকায় পাশের জমিতেই প্রার্থীর লোকজন চেয়ার-টেবিল নিয়ে ভোটার স্লিপ দিতে বসেছেন। এ কেন্দ্রে হুমায়ুন কবির নামের এক যুবক বুকে নৌকা প্রতীকের ব্যাজ লাগিয়ে ৩ নম্বর বুথে প্রভাব সৃষ্টির চেষ্টা করছিল। তাত্ক্ষণিকভাবে তাকে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়।

সকাল পৌনে ১১টার দিকে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায় যেন ভোটের মেলা বসেছে। উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনটিই ভোটকেন্দ্র। আর এর বাইরে পুরো এলাকায় প্রার্থীদের নানা ব্যস্ততা। ভোটারদের মন জয়ে প্রার্থী ও কর্মীরা প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। ধানের শীষ, নৌকাসহ নানা প্রতীকের পোস্টার সাজিয়ে রাখা হয়েছে ক্যাম্পগুলোতে। ভেতরে ঢুকতেই দেখা গেল লম্বা লাইন কেন্দ্রের সীমানা ছাড়িয়ে গেছে। এ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা সেলিমা খাতুন জানান, দুই হাজার ৮৫১ ভোটের মধ্যে এখানে ভোট পড়েছে প্রায় সাড়ে ছয় শ।

বাঘড়া ইউনিয়নটি নানা কারণেই দেশে আলোচিত। স্বাধীনতার পর বর্তমান চেয়ারম্যান ছাড়া এ ইউনিয়নের সব চেয়ারম্যানই খুন হয়েছেন। আর বেঁচে থাকা একজন আইয়ুব আলী চেয়ারম্যানের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে নির্বাচনযজ্ঞ চলাকালেই, গত ১৫ মার্চ। আইয়ুব আলী পাঁচ খুনের মামলায় জেলে আটক থেকেই চেয়ারম্যান হয়েছিলেন গতবার। এ ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়ী হাফিজিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে দুপুর পৌনে ১২টায় নারী-পুরুষের লম্বা লাইনে দাঁড়ানো একই গ্রামের শেখ জামাল উদ্দিন বলেন, ‘আমাগো নির্বাচন নিয়া শঙ্কা যতই থাক এবার নিশ্চিন্তায় ভোট দিচ্ছি। ’ কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার জনতা ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার উজ্জ্বল মজুমদার বলেন, ‘দুই হাজার ৫৪ ভোটের মধ্যে এখন পর্যন্ত সাত শর বেশি ভোট পড়েছে। নানা কারণে আতঙ্কে ছিলাম। ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলতে পারছি না। ’

নির্বাচনপূর্ব সহিংসতার জন্য গণমাধ্যমে শিরোনাম হওয়া কোলাপাড়া ইউনিয়নে দুপুর পৌনে ১টায় গিয়ে দেখা গেল ভোটারের কোনো লাইন নেই। দু-চারজন বিচ্ছিন্নভাবে এসে ভোট দিচ্ছে। ধানের শীষের এজেন্ট সালমা আক্তার বলেন, সকালে ভোটারের চাপ বেশি ছিল, এখন একটু কম। কেন্দ্রের পাশেই উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি মমিন আলীর বাসভবন। তাঁর বাড়িতে হামলার ঘটনাও ঘটেছিল।

শ্রীনগর সদরে ফিরতেই দুপুর ২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত টানা বৃষ্টি। এরপর থেমে থেমে বৃষ্টি হতে থাকে। বিকেল সাড়ে ৩টায় শ্রীনগর মিলনায়তন কেন্দ্রে গিয়ে জানা যায়, প্রায় ৮০ শতাংশ ভোট কাস্ট হয়েছে। তখন কেন্দ্রে অবস্থান করছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক, শিক্ষা ও আইসিটি) মোহা. হারুন-অর-রশীদ। তিনি বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন হচ্ছে। কেন্দ্রের বাইরে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া সুষ্ঠু ভোট হচ্ছে।

পাশের সিরাজদিখান উপজেলার ইছামতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকরা কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়। তাতে সিল মেরে ভোট ডাকাতির চেষ্টা করে। এ সময় ভোটাররা দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করে। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হস্তক্ষেপে আধাঘণ্টার মধ্যেই কেন্দ্রটিতে আবার ভোটগ্রহণ শুরু হয়। এ সময় নৌকা প্রতীকে সিল মারা একটি ব্যালট বই ও মেম্বার পদপ্রার্থী বই প্রতীকের একটি ব্যালট বই উদ্ধার হয়। কেন্দ্রটির প্রিসাইডিং অফিসার সমীর কুমার বসু জানিয়েছেন, উদ্ধার করা ব্যালট বই দুটি বাতিল করা হয়েছে।

শ্রীনগর উপজেলা কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বে থাকা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোছা. সাজেদা সরকার ভোটগ্রহণ শেষে বিকেলে জানান, ৮০ শতাংশেরও বেশি ভোট পড়েছে। শ্রীনগর উপজেলার ১২৬টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯ কেন্দ্রের বাইরে বিশৃঙ্খলা হয়েছে। তবে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ায় ভোটগ্রহণে সমস্যা হয়নি। পুলিশসহ বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, এসব বিশৃঙ্খলায় একজন গুলিবিদ্ধসহ ১৫ জন আহত হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল হাসান বাদল ভোটগ্রহণ শেষে জানান, জেলার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ইউনিয়নগুলোতে ভোটগ্রহণ হয়েছে অত্যন্ত সুষ্ঠু ও উৎসবমুখর পরিবেশে।

উল্লেখ্য, গতকাল মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ১৪ ও সিরাজদিখানের চারটি ইউনিয়নে নির্বাচন সম্পন্ন হয়।


মন্তব্য