kalerkantho


‘ভোট দেখে মনটা ভরে গেছে’

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



‘ভোট দেখে মনটা ভরে গেছে’

ভোটকেন্দ্রে গণ্ডগোল হতে পারে আগে থেকে এমন শঙ্কা দানা বেধেছিল জয়পুরহাট সদর উপজেলার ভাদসা ইউনিয়নবাসীর মনে। নৌকার প্রার্থীই জয়ী হবেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের এমন প্রচারে নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণ নিয়ে সংশয়ে ছিল সবাই।

কিন্তু গতকাল বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করে শান্তিপূর্ণ ভোট হওয়ায় মানুষের সেই শঙ্কা দূর হয়েছে। পুরো নির্বাচনে পেশিশক্তি, মাস্তানি ও দলবাজির পরাজয় ঘটেছে। গণতন্ত্রের জয় হয়েছে। বৃহস্পতিবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভাদসা ইউনিয়নের ৯টি ভোটকেন্দ্র ঘুরে ও ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে ভোট নিয়ে মানুষের শঙ্কার এমন ছবিই পাওয়া গেছে।

সকাল পৌনে ৯টায় পালি আদিবাসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দেখা মেলে পালি গ্রামের ভোটার আবু আহসান মন্টুর। মন্টু জানান, ভোট শুরুর পর থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হাতেম আলীর লোকজন নানা গালগল্প শুনিয়েছেন। তাঁরা কখনো বলেছেন, এক ভোট হলেও আমরা পাস, আবার কখনো বলেছেন, ১২টার পর থেকে ভোটকেন্দ্রে কাউকে খুঁজে পাওয়া যাবে না। অর্থাৎ তাঁরা জোর করে কেন্দ্র দখল করবেন। সরকারি দলের ওই চেয়ারম্যান প্রার্থীর কতিপয় লোকজনের এমন দাপুটে প্রচারে শুধু মন্টু নয়, নিরপেক্ষ ভোট নিয়ে এলাকার অন্য ভোটারদের মাঝেও দেখা দেয় সংশয়।

মন্টু জানান, ভোটে গণ্ডগোলের ভয়ে সকালে আগেভাগে তিনি নিজের ভোট দিয়ে বাড়ি ফেরেন। ভোটকেন্দ্রে পালি গ্রামের কৃষক সব্দুল ইসলাম বলেন, ভোট নিয়ে মনে ভয় থাকলেও সকাল থেকে ভোটকেন্দ্রের পরিবেশ দেখে মনটা ভরে গেছে।

সকাল সাড়ে ১১টায় ফরিদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, নারী ভোটারদের দীর্ঘ লাইন।

নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন প্রতিদ্বন্দ্বী চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগের হাতেম আলী, বিএনপির ইসমাইল হোসেন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ও আনোয়ার হোসেন।


মন্তব্য