kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


পিরোজপুর ও ঝালকাঠিতে দুজনের মৃত্যুদণ্ড

পিরোজপুর ও ঝালকাঠি প্রতিনিধি   

২৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



পিরোজপুরে স্ত্রী ও চাচিকে খুনের দায়ে গৌতম রায় (৩৮) নামের একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ  মো. গোলাম কিবরিয়া। সোমবার সকালে আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেওয়া হয়। ২০১১ সালের ২ ফেব্রুয়ারি গৌতম রায় তার স্ত্রী এবং চাচিকে দা দিয়ে কুপিয়ে ও জবাই করে  হত্যা করে।

পিরোজপুর থানা সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার দক্ষিণ বাদুরা গ্রামের হিমাংশু রায়ের ছেলে গৌতম পারিবারিক কলহের একপর্যায়ে তার স্ত্রী সীমাকে (৩০) জবাই এবং চাচি শেফালিকে (৫০) কুপিয়ে হত্যা করে। ওই ঘটনায় সীমার বাবা ক্ষিতিশ চন্দ্র ভক্ত পিরোজপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা  ২০১২ সালের ১ মে আদালতে গৌতমের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র পেশ করেন। ১৮ জন সাক্ষীর স্বাক্ষর গ্রহণ শেষে জেলা জজ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন। রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন পিপি অ্যাডভোকেট খান মো. আলাউদ্দিন।

এদিকে ঝালকাঠিতে বড় ভাইকে জবাই করে হত্যার দায়ে ছোট ভাইকে মৃত্যুদণ্ড এবং অন্য একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সোমবার দুপুরে ঝালকাঠি জেলা ও দায়রা জজ মো. শফিকুল করিম এ রায় দেন। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত নাজমুল হোসেন আজমুল পলাতক রয়েছেন। যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত বেল্লাল হোসেন রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিল।

জানা গেছে, ২০১০ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে পারিবারিক বিরোধের জেরে ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার উত্তর বাঁশবুনিয়া গ্রামের ভাড়ায়চালিত মোটরাইকেলচালক মো. আলামীনকে তাঁর ছোট ভাই নাজমুল হোসেন আজমুল ও তার সহযোগী বেল্লাল হোসেন জবাই করে হত্যা করে।


মন্তব্য