kalerkantho

শনিবার । ২১ জানুয়ারি ২০১৭ । ৮ মাঘ ১৪২৩। ২২ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ফের সংগঠিত হচ্ছে জামায়াত

সুন্দরগঞ্জ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

২৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ফের সংগঠিত হচ্ছে জামায়াত

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আবারও সংগঠিত হচ্ছে জামায়াত-শিবির। দলটির নিবন্ধন না থাকায় প্রথমবারের মতো স্থানীয় সরকারের এ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জামায়াতের নেতাকর্মীরা। একটি গোয়েন্দা সূত্র জানায়, এ উপজেলার ১৩ ইউনিয়নের মধ্যে ৯টিতে দলটির ১০ জন নেতাকর্মী নির্বাচন করছেন। তাঁদের মধ্যে দুজন কারাগারে। অন্য দলের প্রার্থীদের আশঙ্কা, ওই সংগঠিত হওয়ার মাধ্যমে আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠেয় ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ঘটাতে পারে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা।

২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ফাঁসির রায়কে কেন্দ্র করে সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গাসহ উপজেলায় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা একের পর এক তাণ্ডব চালিয়ে চার পুলিশ সদস্যসহ ছয় ব্যক্তিকে নির্মমভাবে হত্যা করে। তারা বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র এবং রেলস্টেশনে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এসব ঘটনায় দলটির হাজার হাজার নেতাকর্মীর নামে একাধিক মামলা করা হলে শত শত নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়। এরপর নেতাকর্মীরা গ্রেপ্তার এড়াতে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এতে দলটির কর্মকাণ্ড মুখ থুবড়ে পড়ে। তিন বছর পর ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে তারা আবারও সক্রিয় হয়ে ওঠার চেষ্টা করছে। শুধু সুন্দরগঞ্জ নয়, আশপাশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার নেতাকর্মীরাও তাদের দল সমর্থিত প্রার্থীদের জিতিয়ে আনতে ভোট চাচ্ছে। ওই গোয়েন্দা সূত্র জানায়, অন্য দলের চেয়ারম্যান প্রার্থী ও নেতারা আশঙ্কা করছেন, এভাবে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা সংগঠিত হয়ে ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ঘটাতে পারে।

সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে জামায়াতকর্মী সমস উদ্দিন (চশমা), সোনারায় ইউনিয়নে জাকির হোসেন (মোটরসাইকেল), তারাপুর ইউনিয়নে নাশকতা মামলার আসামি জামায়াত নেতা একরামুল হক চৌধুরী (আনারস), বেলকা ইউনিয়নে একাধিক নাশকতা মামলার আসামি জামায়াতকর্মী ইব্রাহীম খলিলুল্লাহ (দুটি পাতা), দহবন্দ ইউনিয়নে নাশকতা মামলায় কারাগারে আটক জামায়াত নেতা গোলাম মোস্তফা প্রামাণিক (চশমা), সর্বানন্দ ইউনিয়নে চার পুলিশ হত্যা মামলার আসামি জামায়াতকর্মী মাহাবুবর রহমান (চশমা), রামজীবন ইউনিয়নে নাশকতা মামলার আসামি কারাগারে আটক জামায়াত নেতা মিজানুর রহমান (চশমা), ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নে পুলিশ হত্যাসহ একাধিক নাশকতা মামলার আসামি জামায়াতকর্মী আমিনুল ইসলাম সাজু (চশমা), ছাপড়হাটি ইউনিয়নে জামায়াতকর্মী ইয়াসিন আলী (চশমা) ও শান্তিরাম ইউনিয়নে জামায়াত নেতা ছামিউল ইসলাম (মোটরসাইকেল) নির্বাচন করছেন।

বিভিন্ন ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দাবি, এ নির্বাচনকে ঘিরে পাশের সাদুল্যাপুর, পলাশবাড়ী, মিঠাপুকুর, পীরগাছা উপজেলার জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা সুন্দরগঞ্জের বিভিন্ন ইউনিয়নে সমবেত হচ্ছে। তারাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুস সামাদ খোকা জানান, তাঁর ইউনিয়নের বিভিন্ন চরাঞ্চলে জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা জড়ো হচ্ছে। বেলকা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী মজিবর রহমান বলেন, জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা যেভাবে সংগঠিত হয়ে মাঠে নেমেছে, তাতে নির্বাচনের দিন তারা যেকোনো ধরনের সহিংসতা ঘটাতে পারে। সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা আহম্মেদ দাবি করেন, জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা নির্বাচনী এলাকাগুলোতে জড়ো হচ্ছে বলে তিনি জানতে পেরেছেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন বলেন, জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা ইউপি নির্বাচনে নাশকতা সৃষ্টির মাধ্যমে নির্বাচন ভণ্ডুল করার চেষ্টা করতে পারে—এমন আশঙ্কায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।


মন্তব্য