kalerkantho


লৌহজংয়ে শিশুর মৃত্যু নিয়ে প্রশ্ন

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



মুন্সীগঞ্জের কনকসার ইউনিয়নের ধীত্পুর গ্রামে ১২ বছরের শিশু সাঈদ খাঁর মৃত্যু নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। তার পরিবারের দাবি, সাঈদ আত্মহত্যা করেনি, তাকে খুন করা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না।

সূত্র জানায়, ধীত্পুর গ্রামের শহীদুল খাঁর ছেলে সাঈদ খাঁ। পোশাক কারখানার কাটিং মাস্টার শহীদুল থাকেন ঢাকার কালীগঞ্জে। সাঈদের মা শিখা বেগম (৪৫) বড় দুই ছেলেকে নিয়ে কালীগঞ্জ এলাকায় ভিন্ন বাসায় থাকেন। ছোট ছেলে সাঈদকে পড়ালেখার জন্য দাদির কাছে গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছিল। গত সোমবার সাঈদ ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পেয়ে শিখা বেগম ছুটে আসেন লৌহজংয়ে। পরে তিনি স্থানীয়দের কাছে ঘটনা শোনেন। তিনি বলেন, ‘আমার ছেলে আত্মহত্যা করেনি। তাকে হত্যা করা হয়েছে।

সে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করলে তার হাত বাঁধা থাকে কী করে?’

লৌহজং থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. বদরুজ্জামান বলেন, ‘হাসপাতাল থেকে খবর পেয়ে আমরা সেখানে গিয়ে জানতে পারি, সাইদ ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে তাকে আহত অবস্থায় আত্মীয়স্বজন লৌহজং উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে আসে। এখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করে আমরা লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছি। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলেই বোঝা যাবে, এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা। সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

কনকসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এটি হত্যা না আত্মহত্যা, এ নিয়ে আমারও প্রশ্ন আছে। ’


মন্তব্য