kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


আলোচনায় তিন প্রার্থী

রংপুর অফিস   

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আলোচনায় তিন প্রার্থী

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌরসভা নির্বাচন জমে উঠেছে। আগামী ২০ মার্চ অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে গত ৫ মার্চ। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে এ নির্বাচনে এবার এলাকায় ভিন্ন আমেজ সৃষ্টি হয়েছে।

এবার হারাগাছ পৌরসভায় মেয়র পদে চার প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত হাকিবুর রহমান মাস্টার, বিএনপির মোনায়েম হোসেন ফারুক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের জাহিদ হোসেন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান মেয়র সাদাকাত হোসেন ঝন্টু। এবারের নির্বাচনে মূলত তিনজনের মধ্যে লড়াই হবে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

নির্বাচনী এলাকা ঘুরে স্থানীয় ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিড়ি শিল্পখ্যাত হারাগাছে মূলত বিড়ি মহাজনকেন্দ্রিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বিড়ি কারখানার মালিকদের সমর্থনের ওপর সাধারণ ভোটাররা অনেকটাই নির্ভর করে। এ ছাড়া টাকার ছড়াছড়ি তো আছেই।

বর্তমানে ভোটারদের মধ্যে তিন প্রার্থীকে নিয়েই বেশি আলোচনা হচ্ছে। বিএনপির সাবেক এমপি শিল্পপতি রহিম উদ্দিন ভরসা এবং জাপার সাবেক এমপি করিম উদ্দিন ভরসার ভাগ্নে মোনায়েম হোসেন ফারুক ধানের শীষ নিয়ে শক্ত অবস্থানে রয়েছেন। পাশাপাশি বর্তমান এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা টিপু মুনশীর নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামী লীগের হাকিবুর রহমান মাস্টার নৌকা প্রতীক নিয়ে আলোচনায় রয়েছেন। দীর্ঘদিন শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থাকায় তাঁরও ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে।

অন্যদিকে বর্তমান মেয়র সাদাকাত হোসেন ঝন্টু মোবাইল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। গত মেয়াদে এলাকার সার্বিক উন্নয়নের বার্তা নিয়ে তিনিও ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। মূলত এ তিন হেভিওয়েট প্রার্থীর মধ্যেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে মনে করছে সাধারণ ভোটাররা।

হারাগাছ পৌর এলাকার বাসিন্দা জুবায়ের আলম বলেন, ভোটের সমীকরণে ঝন্টুর একটা রিজার্ভ ভোট আছে। দীর্ঘদিন মেয়র থাকায় তিনি অনেক উন্নয়ন করেছেন। কিন্তু দলীয় প্রতীকে ভোট হওয়ায় তিনি শেষ পর্যন্ত বেকায়দায় পড়তে পারেন। ওই এলাকার ভোটার আব্দুল হক বলেন, হারাগাছে ভরসা পরিবারের একটা ঐতিহ্য রয়েছে। এ কারণে বিএনপির রিজার্ভ ভোট আছে। তা ছাড়া এখানে জাপার কোনো প্রার্থী নেই। জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি শিল্পপতি করিম উদ্দিন ভরসার ভাগ্নে মোনায়েম হোসেন ফারুক ধানের শীষ প্রতীকে বিপুল ভোটে জিতবেন।

অন্যদিকে পিছিয়ে নেই আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাকিবুর রহমান মাস্টার। হারাগাছের অনেক প্রতিষ্ঠিত বিড়ি কারখানার মালিক ছাড়াও বর্তমান সংসদ সদস্য টিপু মুনশীর সমর্থন রয়েছে তাঁর পক্ষে। এ ছাড়া শিক্ষকতা পেশাকে কাজে লাগিয়ে অনেকটাই শক্ত অবস্থান তৈরি করেছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাকিবুর রহমান মাস্টার বলেন, ‘দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। সব মিলিয়ে নির্বাচনে আমার জয় অনেকটা নিশ্চিত। ’

বিএনপির প্রার্থী মোনায়েম হোসেন ফারুক বলেন, ‘সাবেক এমপি রহিম উদ্দিন ভরসার কারণে হারাগাছে বিএনপির একটা ভোটব্যাংক আছে। তা ছাড়া সাবেক এমপি জাতীয় পার্টির করিম উদ্দিন ভরসাও এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করেছেন। তাঁর কারণেই এলাকায় জাতীয় পার্টি এখনো উজ্জীবিত। নির্বাচনে জাতীয় পার্টির কোনো প্রার্থী নেই। তাঁদের ভাগিনা হিসেবে দলমত নির্বিশেষে সবার ভোট পাব। ’

স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান মেয়র সাদাকাত হোসেন ঝন্টু বলেন, ‘মেয়র থাকাকালে এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। পিছিয়ে পড়া এ এলাকার মানুষ দল নয়, কাজে বিশ্বাস করে। ’

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জি এম সাহাতাব উদ্দিন বলেন, হারাগাছে বিগত নির্বাচনে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি, এবারও ঘটবে না। ২০ মার্চের নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ হবে।


মন্তব্য