kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চুয়াডাঙ্গায় ছাত্রলীগের কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

বাগেরহাটে শিশু, রাঙামাটিতে নারীর লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

১৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



চুয়াডাঙ্গায় গতকাল শনিবার এক ছাত্রলীগকর্মীকে কুপিয়ে হত্যা ও আরেকজনকে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। বাগেরহাটের মোল্লাহাটে গত শুক্রবার রাতে শিশুর ও রাঙামাটি শহরে গতকাল অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এ দুজনকেও হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের। কালের কণ্ঠ’র প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

চুয়াডাঙ্গা : নিহত ভুলু হোসেন (২২) চুয়াডাঙ্গা শহরের জ্বিনতলা পাড়ার খবির উদ্দিনের ছেলে। আহত আকাশ হোসেন (২১) একই এলাকার বাবলু হোসেনের ছেলে। চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলায়েত হোসেন জানান, দুপুর ১টার দিকে সাত-আটজনের একদল যুবক শিশুস্বর্গ এলাকায় গিয়ে ভুলু হোসেন ও আকাশ হোসেনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপায়। পরে এলাকাবাসী তাঁদের উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভুলু হোসেনের মৃত্যু হয়। চিকিৎসাধীন আকাশের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ছাত্রলীগের দুই পক্ষের কোন্দলের জেরে এ ঘটনা ঘটে বলে মনে করছেন শহরের অনেকে। চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরীফ হোসেন দুদু বলেন, ভুলু হোসেন ও আকাশ হোসেন ছাত্রলীগের কর্মী। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলায়েত হোসেন জানান, এ ঘটনায় জড়িত কয়েকজনের নাম-পরিচয় জানা গেছে।

বাগেরহাট : নিহত আকিবুর শেখ (৮) মোল্লাহাট উপজেলার মাদারতলা গ্রামের মো. সেলিম শেখের ছেলে ও স্থানীয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র। শুক্রবার গভীর রাতে স্থানীয় লোকজন উপজেলার মাদারতলী গ্রামের একটি বাগান থেকে আকিবকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের। আকিবের মা মুর্শিদা বেগম জানান, তাঁর স্বামী মো. সেলিম শেখ ব্যবসার কাজে খুলনায় ছিলেন। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে তিনি বাড়িতে তাঁর বৃদ্ধ মায়ের কাছে ছোট ছেলে আকিবুরকে রেখে বড় ছেলে রফিকুলকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ির বাইরে স্বামীকে ফোন করতে যান। কিছুক্ষণ পর বাড়ি ফিরে তিনি আকিবকে পাননি। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির কাছে সুনিল খাঁর একটি বাগানে ছেলেকে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

রাঙামাটি : রাঙামাটি শহরের লেক সিটি হোটেলের পাশ থেকে গতকাল দুপুরে অজ্ঞাতপরিচয় তরুণীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হোটেলটির ব্যবস্থাপক মো. সেলিমকে পুলিশ আটক করেছে। জব্দ করা হয়েছে হোটেলের সিসিটিভি ক্যামেরা ও রেজিস্টার খাতা। কোতোয়ালি থানার ওসি মুহাম্মদ রশীদ বলেন, ওই তরুণীকে কেউ হত্যার পর হোটেলের পেছনে একটি দেয়াল টপকে ফেলে রাখে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।


মন্তব্য