kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জরুরি বিভাগে ডাক্তার নেই, অ্যাসিস্ট্যান্টের হাতে রোগীর মৃত্যু

বোয়ালখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উত্তেজনা, আটক ১

বোয়ালখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গতকাল শুক্রবার দুপুর আড়াইটা। চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কোনো চিকিৎসক নেই।

এ সময় অমল নাথ (৪০) নামে গুরুতর অসুস্থ এক রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তখন মেডিক্যাল সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট তাঁকে একটি ইনজেকশন পুশ করার উদ্যোগ নিলে স্বজনরা জানায়, রোগীর ডায়াবেটিস রয়েছে। কিন্তু তা উপেক্ষা করে ইনজেকশন পুশ করলে অমল নাথ মারা যান।

ঘটনার পর রোগীর স্বজন ও স্থানীয় জনতার মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। তারা মেডিক্যাল সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট নারায়ণ দাশকে মারধর করার চেষ্টা করে। খবর পেয়ে পুলিশ নারায়ণকে আটক করে নিয়ে গেলে উত্তেজনা কমে আসে।

রোগীর স্বজন ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, উপজেলার আকুবদণ্ডী গ্রামের নাথপাড়া এলাকার অমল নাথ গতকাল দুপুর ২টার দিকে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বজনরা দুপুর আড়াইটার দিকে তাঁকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। এ সময় জরুরি বিভাগের কোনো চিকিৎসক ছিলেন না। জরুরি বিভাগের ‘চিকিৎসকের’ দায়িত্ব পালন করছিলেন বোয়ালখালী উপজেলার শাখপুরা কমিউনিটি সেন্টারের সাব-অ্যাসিস্ট্যান্ট মেডিক্যাল অফিসার (স্যাকমো) নারায়ণ দাশ। তিনি রোগী অমলকে সুস্থ করে তুলতে একটি ইনজেকশন দিতে যান। কিন্তু অমল নিজে ও তাঁর স্ত্রী রানীবালা তাঁকে জানান, অমলের ডায়াবেটিস রয়েছে। তাই তাঁকে ইনজেকশন দেওয়া যাবে না; কিন্তু তাঁদের বারণ না শুনে রোগীর শরীরে ইনজেকশন পুশ করলে সঙ্গে সঙ্গে তাঁর মৃত্যু হয়।


মন্তব্য