‘অযোগ্য’দের মনোনয়ন দিতে টাকার খেলা আ.-335006 | প্রিয় দেশ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বুধবার । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৩ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৫ জিলহজ ১৪৩৭


‘অযোগ্য’দের মনোনয়ন দিতে টাকার খেলা আ. লীগে!

রফিকুল ইসলাম রাজশাহী   

১২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ‘অযোগ্য’ বা কম যোগ্যতাসম্পন্নদের আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন দেওয়ার ‘আশ্বাস’ দিয়ে চলছে টাকার খেলা। আট ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে এরই মধ্যে অন্তত অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে, যার সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতাসহ একটি চক্র জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তৃণমূল নেতাকর্মীর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে রাজশাহীর ৯ উপজেলার ৭২টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন হবে। এর মধ্যে জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা বাগমারার ১৬ ইউনিয়নের নির্বাচন হবে। দলের তৃণমূলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কাউকে কাউকে কী করে দলের মনোনয়ন পাইয়ে দেওয়া যায়, তা নিয়ে অপতত্পরতা চলছে। এরই অংশ হিসেবে অন্তত আট ইউনিয়নে কম যোগ্যতাসম্পন্ন প্রার্থীদের কাছ থেকে অন্তত অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

অভিযোগ উঠেছে, এই বাণিজ্যের নেতৃত্বে রয়েছেন বাগমারা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম সান্টু। তিনি জেলার এক নেতাকে ব্যবহার করে পছন্দের অন্তত আট প্রার্থীর কাছ থেকে পাঁচ-সাত লাখ টাকা করে আদায় করেছেন। কখনো কখনো জেলার ওই নেতাকে দিয়ে ফোন করিয়ে প্রার্থীদের ডেকে নিয়ে দলীয় মনোনয়ন পেতে টাকা দেওয়ার জন্য চাপও দেওয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক চেয়ারম্যান প্রার্থী কালের কণ্ঠকে বলেন, কয়েক দিন থেকে জেলা আওয়ামী লীগের ওই নেতা ফোন করে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের রাজশাহীতে দেখা করতে বলছেন। এরপর মনোনয়ন পেতে হলে দলের খরচের জন্য টাকা ব্যয় করতে হবে বলেও ওই নেতা প্রার্থীদের জানিয়ে দিচ্ছেন। সে ক্ষেত্রে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকিরুল ইসলাম সান্টুর সুপারিশ নিতেও বলা হচ্ছে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক নেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, অনেকেই আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার যোগ্য না হয়েও নেতাদের টাকা দিয়ে এখন এলাকায় দাপট দেখাতে শুরু করেছেন। অথচ তৃণমূলের নেতাদের কাছ থেকে মতামত নেওয়া হলে ওই প্রার্থীরা বাদ পড়বেন। দলের প্রয়োজনে যাঁরা কাজ করছেন, তাঁরা মনোনয়ন পাবেন।

মন্তব্য