kalerkantho


পাল্লাডাঙ্গায় ভাঙনের আশঙ্কা

নদী থেকে মাটি চুরি

নাটোর প্রতিনিধি   

৩ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



নাটোরের লালপুর উপজেলার কদিমচিলান ইউনিয়নের পাল্লাডাঙ্গা নদী থেকে দীর্ঘদিন ধরে ভেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করছে পালোহারা গ্রামের প্রভাবশালী একটি মহল। শুষ্ক মৌসুমে নদী শুকিয়ে যাওয়ায় প্রতি বছর তারা ট্রাকে ট্রাকে মাটি উত্তোলন করে বিক্রি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে নদীভাঙনের আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে। পালোহারা গ্রামের আব্দুল কুদ্দুস তাদের মধ্যে একজন। তিনি ওই গ্রামের হাবিবুর রহমান হবুর ছেলে। স্থানীয়রা জানায়, আব্দুল কুদ্দুস ও তাঁর সহযোগীরা নদী থেকে অবাধে মাটি কাটলেও তাদের কেউ বাধা দেওয়ার সাহস পায় না। নদী থেকে মাটি কাটা ও পরিবহনের কারণে নানা দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন এলাকার সাধারণ মানুষ।

পাল্লাডাঙ্গা নদী এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, নদী থেকে ভেকু দিয়ে মাটি কেটে ট্রাক ভর্তি করা হচ্ছে। তারপর নিয়ে যাওয়া হচ্ছে অন্যত্র। এমনকি নদীর পাড় কেটেও মাটি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ফলে নদীর পারের কৃষিজমি ও গাছপালা হুমকির মুখে পড়ছে। অন্যদিকে ট্রাকে করে মাটি নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, মাটি কাটার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। অন্যথায় এলাকার সাধারণ কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এ বিষয়ে অভিযুক্ত আব্দুল কুদ্দুস অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি নিয়মনীতি মেনেই মাটি কাটছি।’

স্থানীয় ইউপি সদস্য কলিম উদ্দিন কালু বলেন, ‘নদীর ভেতরের নিজস্ব জমি থেকে মাটি কাটলে কোনো সমস্যা নেই। আর এখানে সবাই নিজের জমি থেকে মাটি উত্তোলন করছেন।’ এ ব্যাপারে লালপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু তাহির জানান, ‘বিষয়টি সরেজমিনে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’


মন্তব্য