kalerkantho


ভুল সবই ভুল

ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের দেশ ফ্রান্স

সবাই সত্যি জানে—এমন অনেক কথা পরে যাচাই করে দেখা গেছে, সেগুলো মিথ্যা। লিখছেন আসমা নুসরাত

২০ মে, ২০১৭ ০০:০০



ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের দেশ ফ্রান্স

সেলাই মেশিন, বিকিনি, হট এয়ার বেলুন, স্ট্যাচু অব লিবার্টিসহ অনেক কিছুই পৃথিবীকে দিয়েছে ফ্রান্স, তবে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই নয়। গবেষকরা ফিরতে চান পনেরো শতকে।

বেলজিয়ামে। সেকালে বেলজিয়ামের মিউজ ভ্যালির গরিব লোকজন জীবিকা আহরণ করত মাছ ধরে। কিন্তু শীতের সময় নদী শুকিয়ে বরফ হয়ে যেত। তাই লোকদের খাবারের বিকল্প উৎস খুঁজতে হলো। তারা আলু কেটে কেটে ভেজে খেতে লাগল। গবেষকরা বলছেন, আজকের ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের সূচনা সেদিনের মিউজ ভ্যালিতেই। তারপর আমেরিকান সৈন্যরা বেলজিয়ামে তাঁবু গেড়েছিল প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়। বেলজিয়ামের সৈন্যদের অফিশিয়াল ভাষা ছিল ফরাসি। তারা চিকন চিকন করে কাটা আলুগুলোকে বলত লে ফ্রাইত। আমেরিকান সৈন্যরা সহজ করে মুখে তুলে নিল ফ্রেঞ্চ ফ্রাই শব্দ দুটি। তারপর দেশে ফিরে গিয়েও একই কথা চালু রাখল এবং ফ্রান্স কৃতিত্ব পেল। ফ্রেঞ্চ ফ্রাই সারা পৃথিবীতেই জনপ্রিয় পার্শ্বখাবার। কেচাপ, মেয়োনিজ দিয়ে খাওয়া হয়। কানাডিয়ানরা পনিরে ভেজে ফ্রেঞ্চ ফ্রাই খেতে পছন্দ করে। দুঃখজনক হলো, বেলজিয়ামের লোকরাও খায় ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, আর  তা ডিমে ভেজে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ না হলে হয়তো দুনিয়ার লোক একে বেলজিয়ান ফ্রাই বলেই চিনত!


মন্তব্য