kalerkantho


ইউপিডিএফ কর্মী খুন

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি   

১৬ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০



পাহাড়ি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের গুলিতে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) কর্মী তারাবন চাকমা ওরফে বিনাসন (৪৫) নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার সকালে জেলার পানছড়ি উপজেলার নাপিতাপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, সাংগঠনিক কাজে গতকাল ওই গ্রামে যান নিহত বিনাসন। সেখানে আগে থেকে ওত পেতে থাকা ছয়-সাতজন অস্ত্রধারী তাঁকে গুলি করে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নিহত তারাবনকে ইউপিডিএফের পানছড়ি পরিচালক বললেও ইউপিডিএফ নেতারা জানান, তিনি দলটির কোনো বড়মাপের নেতা ছিলেন না। এলাকায় সাংগঠনিকভাবে গণসংযোগের দায়িত্ব পালন করতেন।

ইউপিডিএফের জেলা সংগঠক মাইকেল চাকমা ঘটনার জন্য সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিত পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করে বলেন, ‘বিশেষ মহলের ইন্ধনে বিনা কারণেই বিনাসনকে হত্যা করা হয়েছে।’

তবে জনসংহতি সমিতি (এম এন লারমা) অংশের ছাত্র ও যুববিষয়ক সম্পাদক সুদর্শন চাকমা এ ঘটনায় তাঁদের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে বলেন, ‘এটি ইউপিডিএফের অভ্যন্তরীণ বিরোধেরই বহিঃপ্রকাশ।’

এ ব্যাপারে পানছড়ি থানার ওসি নুরে আলম বলেন, ‘এলাকায় দুই পক্ষের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এটি ঘটে থাকতে পারে। তবে ঠিক কারা এর সঙ্গে জড়িত, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।’

প্রসঙ্গত, পাহাড়ি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর বিরোধে চলতি বছরের এই সময়ের মধ্যে শুধু খাগড়াছড়িতেই পাঁচজন খুন হলেন। তাঁদের মধ্যে তিনজন ইউপিডিএফ এবং দুজন জনসংহতি সমিতির (এম এন লারমা)।



মন্তব্য