kalerkantho

মেয়র আতিকের শপথ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

যত বাধাই আসুক ঢাকার রাসায়নিক গুদাম সরাবই

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যত বাধাই আসুক, সরকার ঢাকা মহানগরীর ভেতর দাহ্য রাসায়নিকের কোনো গুদাম থাকতে দেবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বৃহস্পতিবার নিজের কার্যালয়ে ঢাকা উত্তর সিটির নতুন মেয়র আতিকুল ইসলামের এবং দুই সিটির নতুন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের শপথ অনুষ্ঠানে সরকারপ্রধানের এ হুঁশিয়ারি আসে।

অনুষ্ঠানে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলামকে শপথবাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া ডিএনসিসির ২৬ কাউন্সিলর এবং ডিএসসিসির ২৪ জন নবনির্বাচিত কাউন্সিলরকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম শপথবাক্য পাঠ করান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখানে (রাজধানীতে) তারা (ব্যবসায়ীরা) তাদের শোরুম রাখতে পারবে। যে পণ্য তারা উপাদন করবে তারা তা বিক্রি করতে পারবে। কিন্তু গোডাউনের জন্য আমরা সম্পূর্ণ আলাদা জায়গা করে দেব।’

চকবাজারের চুড়িহাট্টায় গত ২০ ফেব্রুয়ারি ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৭১ জনের প্রাণহানির পর পুরান ঢাকা থেকে সব রাসায়নিকের গুদাম সরাতে সময় বেঁধে দেয় সরকার। এরপর চকবাজার, বকশীবাজারসহ বিভিন্ন এলাকার বাড়ি বাড়ি অভিযান চালাচ্ছে সিটি করপোরেশনের টাস্কফোর্স।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নিমতলী ট্র্যাজেডির পর চকবাজারে যে আগুনটা লাগল, এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। কাজেই এখানে দাহ্য পদার্থ থাকতে পারবে না।’

শেখ হাসিনা বলেন, আবাসিক এলাকায় রাসায়নিকের গুদাম স্থাপন করা যাবে না। সরকার রাসায়নিক গুদামের জন্য পৃথক জায়গার ব্যবস্থা করবে, যাতে দাহ্যবস্তু সেখানে নিরাপদে রাখা যায়।

পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘তাদের ব্যবসা আমরা নষ্ট করতে চাই না। কিন্তু যেখানে বসতি, সেখানে গোডাউন তারা রাখতে পারবে না।’

চুড়িহাট্টায় অগ্নিকাণ্ডে পাঁচটি ভবন পুড়ে যায়, যেগুলোতে প্লাস্টিক দ্রব্য, রাসায়নিক কিংবা প্রসাধন সামগ্রীর গুদাম ছিল। ৯ বছর আগে নিমতলীতে অগ্নিকাণ্ডে শতাধিক মানুষের প্রাণহানির পরও পুরান ঢাকার সব রাসায়নিকের গুদাম সরিয়ে ফেলার সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু ব্যবসায়ীদের অসহযোগিতায় তা সম্ভব হয়নি বলে সরকারের ভাষ্য। সূত্র : বাসস।

মন্তব্য