kalerkantho


ফের জমজমাট বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়

চার দিনে ফরম বিক্রি চার হাজার ১১২টি
জমা পড়েছে এক হাজার ২০৯টি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ফের জমজমাট বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের এক দিন পর ফের জমজমাট হয়ে উঠেছে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

মনোনয়ন ফরম বিতরণের তৃতীয় দিনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় উৎসাহ-উদ্দীপনায় কিছুটা ছেদ পড়েছিল। চতুর্থ দিনে সে পরিস্থিতি কেটে গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিতরণের চতুর্থ দিনেও ঢাকঢোল পিটিয়ে মিছিলসহ নেতাকর্মীদের নিয়ে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন প্রার্থীরা। এই চার দিনে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কাছে চার হাজার ১১২টি ফরম বিক্রি করেছে বিএনপি। প্রথম দিন এক হাজার ৩২৬টি, দ্বিতীয় দিন এক হাজার ৮৯৬টি, তৃতীয় দিন ৪৮৮টি এবং চতুর্থ দিন গতকাল বিকেল ৪টা পর্যন্ত ৪০২টি মনোয়ন ফরম বিক্রি হয়েছে। গত চার দিনে জমা দিয়েছেন এক হাজার ২০৯ জন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গতকাল সকাল ৯টা থেকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসতে থাকে দলের নেতাকর্মীরা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বাড়তে থাকে। মনোনয়ন সংগ্রহকারীদের মিছিলের পাশাপাশি বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন ছাত্রদল, যুবদলের নেতাকর্মীদের ছোট ছোট ভাগে বিভক্ত হয়ে কার্যালয়ের সামনে থেকে নাইটিঙ্গেল মোড় পর্যন্ত সারা দিনই থেমে থেকে মিছিল করতে দেখা গেছে। গতকাল বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্যোগে নয়াপল্টনে দলের কার্যালয়ের সামনের রাস্তার একটি অংশে গাড়ি চলাচলের জন্য ছেড়ে দিতে দেখা গেছে। মিছিল থেকে মনোনয়ন সংগ্রহকারীর পক্ষে স্লোগান দেওয়ার পাশাপাশি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে স্লোগান দেয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা।

গতকাল সন্ধ্যায় নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী বলেন, ‘আজকেও সারা দিন ফরম বিক্রি করা ও জমাদান চলছে। মনোনয়নপ্রত্যাশীরা জমা দিচ্ছেন এবং আমাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে নিজ নিজ এলাকায় ফিরে যাচ্ছেন। এখন পর্যন্ত আজকে (গতকাল) জমা পড়েছে ৮৫৮টি মনোনয়ন ফরম এবং বিক্রি হয়েছে ৪০২টি ফরম। গত দুই দিনে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন এক হাজার ২০৯ জন মনোনয়নপ্রত্যাশী।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় (ফেসবুকে) বলেছেন বিএনপির সব নেতাকর্মীকে জেলে ভরা উচিত। এ হচ্ছে তাদের মেন্টালিটি, এ হচ্ছে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের মানসিকতা।’

সংবাদ সম্মেলনে দলের নেতা এমরান সালেহ প্রিন্স, অধ্যক্ষ সোহরাবউদ্দিন, মুনির হোসেন, বেবী নাজনীন, নিপুন রায় চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

একই স্থানে গতকাল সকালের সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, তফসিল ঘোষণার পর অস্ত্র জমা দেওয়ার ব্যাপারে এখনো কোনো নির্দেশনা দেয়নি ইসি। গত ১০ বছর আওয়ামী লীগের ক্যাডারদের হাতে প্রচুর পরিমাণ বৈধ ও অবৈধ অস্ত্র দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনকালীন সময়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও বৈধ অস্ত্র জমাদান অত্যন্ত জরুরি হলেও ইসি নির্বিকার ভূমিকা পালন করছে।

খুলনা, কক্সবাজার, বগুড়া, বরগুনা, পাবনাসহ বিভিন্ন জেলায় গ্রেপ্তারকৃতদের তালিকা তুলে ধরে তাদের মুক্তির দাবি করেন রিজভী। এ সময় দলের নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মীর নেওয়াজ আলী নেওয়াজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হেভিওয়েট যাঁরা গতকাল মনোনয়ন ফরম নিলেন : নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) থেকে মনোনয়ন সংগ্রহ করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকতউল্লা বুলু ও তাঁর সহধর্মিণী শামীমা বরকত লাকী। বিশাল শোডাউন করে মনোয়নপত্র সংগ্রহ করেন তাঁরা। অন্যদিকে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও বরিশাল উত্তর জেলার সাধারণ সম্পাদক আ ক ন কুদ্দুসুর রহমান। এ সময় নেতাকর্মীদের মাথায় ছিল সাদা ক্যাপ, হাতে ছিল রংবেরঙের পোস্টার, ব্যানার। রাজবাড়ী-২ (সদর-গোয়ালন্দ ঘাট) আসন থেকে অ্যাডভোকেট আসলাম মিয়া, পঞ্চগড়-১ আসন থেকে ব্যারিস্টার নওশাদ জমির ও পৌর মেয়র তৌহিদুল ইসলাম, পঞ্চগড়-২ থেকে ফরহাদ হোসেন আজাদ, ঢাকা-১৮ থেকে মোহাম্মদ বাহাউদ্দিন সাদী, কুমিল্লা-২ আসন থেকে শরিফুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-১ আসন থেকে মো. মোফাজ্জল হোসাইন নিটুল, ফেনী-১ ও ২ আসন থেকে রফিকুল আলম মঞ্জু মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। সিরাজগঞ্জ-৫ আসন থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দেন বিএনপির সহপ্রচার সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলিম।



মন্তব্য